Tuesday, June 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সিআইডি পরিচয়ে প্রথম আলোর সাংবাদিককে তুলে নেওয়ার অভিযোগ

মো. শামসুজ্জামান সাভারে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে কর্মরত

আপডেট : ২৯ মার্চ ২০২৩, ০১:১৪ পিএম

সিআইডি পুলিশ পরিচয়ে ঢাকার সাভার থেকে দৈনিক প্রথম আলোর সাংবাদিক মো. শামসুজ্জামান তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।  

জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলে বুধবার (২৯ মার্চ) ভোররাত ৪টার দিকে আশুলিয়ার আমবাগান এলাকার ভাড়া বাসা থেকে সাংবাদিক শামসুজ্জামানকে নিয়ে যায় একদল লোক।

মো. শামসুজ্জামান সাভারে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে কর্মরত। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ (৩৫তম ব্যাচ) শিক্ষার্থী ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জ সদরের কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামে।

শামসুজ্জামান সাভারের আমবাগান এলাকায় ভাড়া বাসায় একাই থাকেন। তবে গত রাতে স্থানীয় এক সাংবাদিক ঘটনার সময় শামসুজ্জামানের আমবাগানের বাসায় ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ওই সাংবাদিক বলেন, “ভোররাত ৪টার দিকে শামস ভাইয়ের বাসায় ব্যক্তি ভাইয়ের কক্ষে তল্লাশি করে এবং তার ব্যবহৃত একটি ল্যাপটপ, দুটি মোবাইল ফোন ও একটি পোর্টেবল হার্ডডিস্ক নিয়ে একটি ব্যাগে ঢোকায়। এরপর কর্মকর্তা গোছের একজন বলেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদ করে বাসায় দিয়ে যাওয়া হবে'।”

“৪৫ মিনিট পর তারা আবার শামসুজ্জামান ভাইকে নিয়ে বাসায় আসেন এবং ৫-৭ মিনিটের মধ্যে আবার তাকে নিয়েই বেরিয়ে যান।”

প্রত্যক্ষদর্শী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, “ক্যাম্পাসে বটতলার নূরজাহান হোটেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন, একজন নিরাপত্তা প্রহরী, শামসুজ্জামানসহ মোট ১৯ জন ব্যক্তি সেহরির খাবার খান। ভোর পৌনে ৫টার দিকে বটতলা থেকে তারা আবার শামসুজ্জামানের বাসায় যান। সিআইডির ব্যবহৃত দুইটি গাড়ির রেজিস্ট্রেশন নম্বর ছিল (ঢাকা মেট্রো চ ৫৬-২৭৪৭ ও ঢাকা মেট্রো জ ৭৪-০৩৩১) আরেকটিতে কোন নম্বরপ্লেট দেখা যায়নি। দ্বিতীয়বার বাসায় যাওয়ার সময় আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রাজু সেখানে উপস্থিত ছিলেন।”

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রাজু মন্ডল বলেন, “ঘটনাস্থলে সিআইডির এক এসপি ছিলেন। ওখানে আমাকে জাস্ট তারা উপস্থিত থাকতে বলছেন। পোশাকধারী পুলিশ সদস্য হিসেবে আমি সেখানে ছিলাম। কোন কারণে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে আমি জানি না।”

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান সকালে গণমাধ্যমকে জানান, তিনি এ বিষয়ে এখনো কিছু জানেন না। তারা কাউকে গ্রেপ্তার করেননি।

যা বলছে শামসুজ্জামানের কর্মস্থল প্রথম আলো

শামসুজ্জামানকে তুলে নেওয়ার বিষয়ে প্রথম আলোর দুবার কথা বলে ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামানের সঙ্গে। সর্বশেষ সকাল সাড়ে ৮টায় তিনি প্রথম আলোকে বলেন, “শামসুজ্জামানকে আটক করা হয়েছে- এমন কোনো তথ্য তার কাছে নেই।”

সকাল ১০টার দিকে সিআইডি ঢাকা বিভাগের উপমহাপরিদর্শক মো. ইমাম হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তিনি দাবি করেন, সিআইডির ঢাকা বিভাগ তার দায়িত্বে। তার বিভাগের কেউ শামসুজ্জামানকে আটক করতে যায়নি।

About

Popular Links