Friday, May 31, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পর্নোগ্রাফি মামলায় পুলিশ কনস্টেবল ও মুয়াজ্জিন গ্রেপ্তার

নারীর সঙ্গে শিক্ষকের আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করেন পুলিশ কনস্টেবল ও মসজিদের মুয়াজ্জিন। সেই ভিডিও দেখিয়ে শিক্ষকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেন দুইজন

আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০২৩, ১১:২১ পিএম

রাজশাহীতে পর্নোগ্রাফি আইনের মামলায় এক কনস্টেবলসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রবিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শনিবার (১ এপ্রিল) রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) রাজপাড়া থানার একটি দল চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার ধানসুরা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে।

অভিযুক্তরা হলেন- রাশেদুল খান (৩০) ও শহিদুল ইসলাম সুমন (৩২)। শহিদুলের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলায়। তিনি একটি মসজিদের মুয়াজ্জিন। আর রাশেদুল ইসলাম পুলিশ কনস্টেবল। আরএমপির পবা থানার বায়া পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত ছিলেন তিনি। সম্প্রতি তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

জানা গেছে, ৫ মার্চ নগরীর রাজপাড়া থানার বহরমপুর এলাকার এক নারীর সঙ্গে শিক্ষকের আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করেন রাশেদুল ও শহিদুল। সেই ভিডিও দেখিয়ে শিক্ষকের কাছ থেকে নগদ এবং মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেন দুইজন। পরবর্তীতে তারা আরও টাকা দাবি করছিলেন। টাকা না দিলে ভিডিও ফাঁস করে দেওয়ার ভয় দেখাচ্ছিলেন। এ নিয়ে ২০ মার্চ পুলিশ সদস্য রাশেদুল ও তার সহযোগী শহিদুলকে আসামি করে রাজপাড়া থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা করেন ভুক্তভোগী শিক্ষক।

প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় আরএমপি কমিশনার আনিসুর রহমান পুলিশ সদস্য রাশেদুলকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। এরপর শনিবার রাতে পুলিশ দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করে। ২ এপ্রিল দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আরএমপি কমিশনার আনিসুর রহমান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “কোনো পুলিশ সদস্য যদি অপরাধ করেন, তাহলে তারও ছাড় নেই। সাধারণ মানুষ অপরাধ করলে যেমন মামলা হবে, পুলিশের ক্ষেত্রেও তাই। পুলিশ সদস্য বলেই যে কেউ অপরাধ করে পার পেয়ে যাবেন, এমনটা হতে দেওয়া হবে না।”

About

Popular Links