Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘বেশি স্মার্টনেস দেখাবেন না, কারাগারে পাঠিয়ে দেবো’, এসআই মাসুদকে হাইকোর্ট

মানিকগঞ্জ সদরের কৈতরা গ্রামের মো. রুবেল নামে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধারের ৪২ ঘণ্টার মধ্যে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মাসুদ রানা

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২৩, ০৪:০৬ পিএম

মানিকগঞ্জ সদরের কৈতরা গ্রামের মো. রুবেল (২২) হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মাসুদ রানার উদ্দেশে হাইকোর্ট বলেছেন, “আদালতে বেশি স্মার্টনেস দেখাবেন না। একদম কারাগারে পাঠিয়ে দেবো।”

তলব আদেশে হাজির হওয়ার হলে এ সংক্রান্ত মামলার শুনানির সময় সোমবার (৩ এপ্রিল) বিচারপতি মো. বদরুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম বদরুজ্জামানের দ্বৈত হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব মন্তব্য করেন।

শুনানির শুরুতে মাত্র ৪২ ঘণ্টায় হত্যা মামলার অবিশ্বাস্য তদন্ত প্রসঙ্গে পুলিশ কর্মকর্তাকে উদ্দেশ করে আদালত বলেন, “আপনার মতো পুলিশ অফিসার দরকার। আপনি মাত্র ৪২ ঘণ্টায় হত্যা মামলা তদন্ত শেষ করলেন? এ সময়ের মধ্যে কখন সাক্ষী নিলেন, কখন ঘুমালেন, কখন খাওয়া দাওয়া করলেন? তা আমাদের দেখান। আর কতটি মামলা আপনি তদন্ত করেছেন, সেগুলো কত সময়ে শেষ করেছেন তার তালিকা দেন।”

জবাবে পুলিশ কর্মকর্তা মাসুদ রানা বলেন, “এটা আমার প্রথম তদন্ত।”

এরপর ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সুজিত চ্যাটার্জি বাপ্পী বলেন, “চার্জশিট দ্রুত দিলেও সমস্যা। আবার দেরি করে দিলেও সমস্যা।”

তখন আদালত বলেন, “তাহলে আমরা একটা মক ট্রায়াল করি। কত দ্রুত চার্জশিট দিতে পারেন, সেটা আমরা দেখতে চাই।”

জবাবে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সুজিত চ্যাটার্জি বাপ্পী বলেন, “সেটা দেখার এখতিয়ার আপনাদের আছে।”

একপর্যায়ে আদালত জমা দেওয়া নথিতে দেখতে পান, সাটুরিয়া থানার মামলার একটি তদন্ত প্রতিবেদন রেফারেন্স হিসেবে নথিতে সংযুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। 

যার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত পুলিশ কর্মকর্তা মো. মাসুদ রানাকে ভর্ৎসনা করে বলেন, “কেন আপনি এটা দিলেন। আপনার কাছে তো রেফারেন্স চাওয়া হয়নি। বেশি স্মার্টনেস দেখাচ্ছেন। নিজেকে বেশি স্মার্ট মনে করেন? কোর্টের সঙ্গে বেশি স্মার্টনেস দেখাবেন না। একেবারে কারাগারে পাঠিয়ে দেবো।”

পরে আদালত এই মামলার শুনানি দুপুর ২টা পর্যন্ত মুলতবি করেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ মার্চ মানিকগঞ্জ সদরের কৈতরা গ্রামের মো. রুবেল (২২) হত্যার ঘটনায় মরদেহ উদ্ধার থেকে অভিযোগপত্র ৪২ ঘণ্টার অবিশ্বাস্য তদন্ত কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে রুবেল হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মানিকগঞ্জ সদর থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. মাসুদ রানাকে কেস ডকেটসহ আদালতে হাজির হতে বলা হয়।

গত ১ মার্চ একটি জাতীয় দৈনিকে “লাশ উদ্ধার থেকে অভিযোগপত্র, ৪২ ঘণ্টার অবিশ্বাস্য তদন্ত” শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এই প্রতিবেদন সংযুক্ত করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়।

২০২২ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে মানিকগঞ্জ সদরের কৈতরা গ্রামের একটি হ্যাচারিতে খুন হন মো. রুবেল (২২)। পরদিন নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে সোহেল নামের একজনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। পরে আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তিনি এখন কারাগারে রয়েছেন।

About

Popular Links