Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ছাগলের গাড়িতে মজেছে নাটোরের মানুষ (ভিডিও)

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানতে চাইলে মজিবর রহমান মৃধা জানান, এলাকার এক প্রবাসী বিদেশ যাওয়ার আগে তাকে একটি মোটরসাইকেল দিয়ে গেছেন। কিছুদিনের মধ্যেই মোটরসাইকেলটি বিশেষ পদ্ধতিতে তিনি ছাগলের গাড়ির সঙ্গে যুক্ত করবেন।

আপডেট : ২১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০২:০১ পিএম

সরাচরই চোখে পড়ে ঘোড়া আর গরুর গাড়ি। বিশ্বের কোনো কোনো দেশে কুকুর দিয়ে টানা গাড়িও দেখা যায়। কিন্তু তাই বলে ছাগলের গাড়ি! হ্যাঁ, অবাক করা হলেও নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলায় দেখা মিলেছে এমন অদ্ভুত এক গাড়ির। 

মহান বিজয়ের মাসে নাটোরের মানুষকে বিজয়ের আনন্দ দিতে ছাগলের গাড়িটি তৈরি করেছেন মজিবর রহমান মৃধা (৬৫) নামের এক ব্যক্তি। তার বাড়ি উপজেলার সমস খলশি গ্রামে। 

মজিবর রহমানের তৈরি গাড়িটি অনেকটা ঘোড়া টানা গাড়ির মতোই। গাড়ির দুই দিকে দুটি চাকা, মাথার ওপরে ছাউনি রয়েছে। আর সামনে গাড়ি টানার জন্য থাকবে দুটি ছাগল। 

মজিবর রহমান মৃধা জানান, ১৫-১৬ বছর বয়স থেকে তিনি গ্রামে লাঠি খেলা, ফুটবল খেলাসহ বিভিন্ন খেলায় অংশ নিতেন। পাকিস্তান আমলে নাটোর শহরের লাঠি খেলে তিনি প্রথম পুরস্কার পান। খেলার ছলে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে গিয়ে দেখেছেন বিভিন্ন বিস্ময়কর আবিষ্কার।

সৌখিন এই মানুষটি ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান তার উপলব্ধির কথা। তিনি জানান, মানুষ কেন জানি যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছে। মানুষের কোনো বিনোদন, নেই কোন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, নেই আনন্দ করার মতো কোনো অনুষ্ঠান। কিন্তু আনন্দ ছাড়া জীবন ব্যর্থ, এই উপলব্ধি থেকে সাধারণ মানুষকে আনন্দ দেওয়ার চিন্তা আসে তার মাথায়। 

মনস্থির করেন ঘোড়া দিয়ে একটি গাড়ি বানানোর। ইচ্ছার কথা জানালে, শাহীন নামের এলাকার প্রবাসী এক যুবক তাকে একটি ঘোড়া কিনে দেন। ওই ঘোড়াকে নানা রঙে সাজিয়ে গাড়ির সঙ্গে জুড়ে এলাকার মানুষদের নিয়ে বেড়াতেন তিনি। বিনিময় কোনো টাকা পয়সা নিতেন না। কিছুদিন পরে গ্রামের এক বেকার তার কাছে ঘোড়াটি দাবি করেন। গাড়ি দিয়ে ভাড়া খেটে সংসার চালাবেন এমন ইচ্ছা জানার পর তিনি ওই ব্যক্তিকে গাড়িসহ ঘোড়াটি দিয়ে দেন।


পরে মজিবর রহমান জানতে পারেন, বিভিন্ন দেশে কুকুর দিয়ে গাড়ি টানানো হয়। তিনি চিন্তা করেন, কুকুর দিয়ে যদি গাড়ি টানানো যায়, তবে ছাগল দিয়ে কেন নয়?

মজিবর রহমান মৃধা জানান, এই চিন্তা থেকে তিনবছর আগে ৯০০ টাকা দিয়ে তিনি একটি ছাগল কেনেন।সেটির দুটি বাচ্চা হয়। বাচ্চা দুটি বড় হলে তিনি ছাগল টানা এই গাড়িটি তৈরি করেন।

প্রতিদিনই মজিবর ছাগল টানা গাড়ি নিয়ে এলাকার রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে ফিরছেন, মজা দিচ্ছেন এলাকাবাসীকে। তার গাড়িটি দেখতে প্রতিদিনই ভিড় করছে শত শত মানুষ।

About

Popular Links