Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

তিন কিশোর মিলে শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা

তারা তিন বন্ধু মিলে শিশুটিকে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে

আপডেট : ০৬ মে ২০২৩, ০৯:১৯ পিএম

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় প্রথম শ্রেণি পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় পুলিশের কাছে দোষ স্বীকার করেছে এক কিশোর। একইসঙ্গে তার সঙ্গে থাকা দুই বন্ধুর নামও জানিয়েছে।

শনিবার (৬ মে) সকালে তাকে হেফাজতে নেওয়ার পর বিকেলে জেলার দ্বিতীয় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়।

শনিবার ১৬৪ ধারায় তার স্বীকারোক্তি রেকর্ডের জন্য সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নেওয়া হয়।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) স্নিগ্ধ আখতার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, “পুলিশ হেফাজতে নেওয়া কিশোর (১৭) পেশায় শ্রমিক। সে তার স্বীকারোক্তিতে বলেছে যে, তারা তিন বন্ধু মিলে শিশুটিকে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে। বৃহস্পতিবার বিকেলে শিশুটি বাড়ি থেকে এলাঙ্গী বাজারের দিকে যাওয়ার সময় তারা ধরে এলাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীরের জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষণ করে। ঘটনা ফাঁস হওয়ার ভয়ে মাথায় ইট দিয়ে আঘাতের পর গলাটিপে হত্যা করে।”

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, “শিশুটি নিখোঁজের পর তার স্বজনরা সম্ভাব্য সব জায়গায় খুঁজাখুঁজি করেও পায়নি। পরদিন ধুনট থানায় একটি জিডি করেন শিশুর বাবা। রাত ৮টার দিকে এলাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর সংলগ্ন জঙ্গলে লাশ পাওয়া যায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার ও হত্যায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে মাঠে নামে। শিশুর বাবা শনিবার সকালে থানায় হত্যা মামলা করেন।”

তিনি জানান, পুলিশের হেফাজতে নেওয়া ওই কিশোর হত্যা ও ধর্ষণের দায় স্বীকার করলে বিকেলে বগুড়ার দ্বিতীয় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে নেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। তার সঙ্গে থাকা অপর দুইজনের নাম ও পরিচয় পাওয়া গেছে। তাদের হেফাজতে নেওয়ার চেষ্টা চলছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About

Popular Links