Sunday, June 16, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসা, গ্রেপ্তার দুই চিকিৎসকের স্বীকারোক্তি

সেন্ট্রাল হাসপাতালের প্রতারণা ও চিকিৎসকদের ভুলে মৃত্যু হয় নবজাতকের। অন্যদিকে, মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন তার মা

আপডেট : ১৫ জুন ২০২৩, ০৫:৪০ পিএম

রাজধানীর গ্রিন রোডের সেন্ট্রাল হসপিটালে চিকিৎসকদের ভুলে নবজাতকের মৃত্যু এবং মায়ের মৃত্যুঝুঁকির ঘটনায় মামলা করেছে ভুক্তভোগী পরিবার। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার দুই চিকিৎসক আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন। 

গ্রেপ্তার দুই চিকিৎসক ডা. শাহজাদী ও ডা. মুনা স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে চাইলে তা রেকর্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আফনান সুমীর আদালত ডা. শাহজাদীর এবং আরেক মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ফারাহ দিবা ছন্দার আদালত আসামি ডা. মুনার জবানবন্দি রেকর্ড করেন।


আরও পড়ুন- চিকিৎসকের ভুলে সেন্ট্রাল হাসপাতালে নবজাতকের মৃত্যু, মরণাপন্ন মা


এর আগে  ভুল চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যু এবং মা মৃত্যুঝুঁকিতে পড়ার ঘটনায় বুধবার ধানমন্ডি থানায় ‘‘অবহেলাজনিত মৃত্যু''র মামলা করেন ভুক্তভোগীর স্বামী ইয়াকুব আলী সুমন। মামলায় ডা. শাহজাদী, ডা. মুনা, ডা.মিলি, সহকারী জমির, এহসান ও হাসপাতালের ম্যানেজার পারভেজকে আসামি করা হয়। এছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার পর বুধবার রাতেই  ডা. শাহজাদী ও ডা. মুনাকে হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

ধানমন্ডি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. পারভেজ ইসলাম  ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “গতকাল রাতে ভুক্তভোগীর স্বামী ইয়াকুব আলী সুমন ভুল চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যু ও মাকে মৃত্যুঝুঁকিতে ফেলার অভিযোগে মামলা করেন। মামলায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিরা পলাতক। তাদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।”

সন্তান জন্মদানের সম্ভাব্য তারিখ অনুযায়ী গত ৯ জুন সেন্ট্রাল হাসপাতালে যান মাহবুবা রহমান আঁখি নামে এক প্রসূতি। তিনি ওই হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. সংযুক্তা সাহার পর্যবেক্ষণে ছিলেন। কথা ছিল, ডা. সংযুক্তার তত্ত্বাবধানেই আঁখির নরমাল ডেলিভারি হবে। কিন্তু ওই চিকিৎসক সেদিন হাসপাতালে ছিলেন না। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সে তথ্য গোপন করে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসকদের ভুলে নবজাতকের মৃত্যু হয় এবং মূত্রনালী কেটে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েন আঁখি। প্রতারণা বুঝতে পেরে বিষয়টি তৎক্ষণাৎ জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ জানান ভুক্তভোগীর স্বামী। পরবর্তীতে তাকে ল্যাবএইড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

About

Popular Links