Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের নেতা ইমাম খোমেইনী’

গত ৪৩ বছরে ইরানের অর্থনৈতিক, সামরিক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসহ সব সেক্টরে যে অগ্রগতি হয়েছে, তার সবই খোমইেনীর আত্মপরিচিতি ও আত্মবিশ্বাসের অনুপ্রেরণার কাছে ঋণী

আপডেট : ০৪ জুন ২০২২, ০৮:৪৬ পিএম

ইমাম খোমেইনীর (রহ.) ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক ওয়েবিনারের আয়োজন করে ঢাকার ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। ওয়েবিনারে বক্তারা বলেন, “বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের নেতা ইমাম খোমেইনী (রহ.) ইসলামী বিপ্লব করে বিশ্বের অসহায় ও বঞ্চিত মানুষের জন্য আশার আলো যুগিয়েছেন। চিন্তা ও সৃষ্টিশীলতার জগতে সমন্বয় ঘটিয়েছেন।”

শনিবার (৪ জুন) বিকেলে ইমাম খোমেইনীর (রহ.) ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এই ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাউথ-ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. আ ন ম মেশকাত উদ্দিন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইরান দূতাবাসের হেড অব মিশন জনাব আলী পিরি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ও গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ’র উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর আনিসুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, “ইমাম খোমেইনী (রহ.) ছিলেন একাধারে একজন দার্শনিক, ফকিহ, রাজনৈতিক নেতা এবং আধ্যাত্মিক সাধক। তার ইরফানি ব্যক্তিত্ব অন্য সব গুণের চাইতে সমাজকে বেশি প্রভাবিত করেছে। আল্লাহকে অন্বেষণ, খোদাভীতি আর মানুষের প্রতি ভালোবাসা, এই তিন গুণ ছিল ইমাম খোমেইনীর সাফল্যের রহস্যকথা। তার সত্যকামী চিন্তাধারা পৃথিবীর নানা প্রান্তে  ছড়িয়ে পড়েছে।”

বক্তারা আরও বলেন, “গত ৪৩ বছরে ইরানের অর্থনৈতিক, সামরিক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসহ সব সেক্টরে যে অগ্রগতি হয়েছে, তার সবই খোমইেনীর আত্মপরিচিতি ও আত্মবিশ্বাসের অনুপ্রেরণার কাছে ঋণী। তিনি সাম্রাজ্যবাদী লেজুড় সংস্কৃতি প্রত্যাখ্যান করতেন। খোমেইনী সাংস্কৃতিক উপাদানকে সমাজ সংস্কারের উপায় বলে মনে করতেন।”

ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের কালচারাল কাউন্সেলর ড. সাইয়্যেদ হাসান সেহাতের সভাপতিত্বে ও ঢাকার ইরানিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ভাইস প্রিন্সিপাল ড. আব্দুল কুদ্দুস বাদশার সঞ্চালনায় ওয়েবিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান, বিশিষ্ট লেখক, গবেষক ও ইসলামী চিন্তাবিদ ড. ঈসা শাহেদী, খুলনায় অবস্থিত ইসলামি শিক্ষা কেন্দ্রের প্রিন্সিপাল হুজ্জাতুল ইসলাম সাইয়্যেদ ইব্রাহিম খলিল রাজাভী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দিন ও দৈনিক ইনকিলাবের সিনিয়র সাংবাদিক জামাল উদ্দিন বারী।

About

Popular Links