Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ল্যান্ডিং গিয়ারে সমস্যা, ৭৪ যাত্রীকে বাঁচালেন পাইলট

‘এয়ারক্যাফটি ল্যান্ডিংয়ের আগে এর নিয়ন্ত্রণ প্যানেলে ল্যান্ডিং গিয়ারের (সমস্যার) ইন্ডিকেটর শো করে। এসব এয়ারক্যাফটে একটা সেকেন্ড অপশন থাকে। পাইলট সেই প্রসিডিউর অ্যাপ্লাই করে প্লেনটি সেইফলি ল্যান্ড করান’

আপডেট : ১৮ জুন ২০২২, ০১:৫৪ এএম

ল্যান্ডিং গিয়ারে সমস্যা দেখা দেওয়া বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজটি ৭৪ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেছে।

বরিশালফেরত বিমানটি শুক্রবার (১৭ জুন) দুপুরে ঢাকায় নামার সময় বিমানবন্দরের জরুরি ব্যবস্থাগুলো প্রস্তুত রাখা হয়। তবে শেষ পর্যন্ত পাইলট “সেকেন্ড অপশন” ব্যবহার করে নিরাপদ অবতরণ করাতে সক্ষম হন বলে জানিয়েছেন বিমানের মুখপাত্র।

অবতরণের জন্য চাকাসহ সংশ্লিষ্ট যে যন্ত্রাংশগুলো কাজে লাগে, সেগুলোকে ল্যান্ডিং গিয়ার বলা হয়। অবতরণের সময় চাকা না খুললে বা ল্যান্ডিং গিয়ারে জটিলতা হলে প্রাণঘাতী দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে। ড্যাশ-৮ ৪০০ মডেলের টার্বোপ্রপেলার উড়োজাহাজটি শুক্রবার দুপুরে বরিশাল থেকে রওনা হয়ে ঢাকায় আসার সময় ল্যান্ডিং গিয়ারে জটিলতা দেখা দেয়।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক তাহেরা খন্দকার বলেন, “যাত্রীরা সবাই নিরাপদে রয়েছেন, উড়োজাহাজটি কারিগরি পরীক্ষার জন্য হ্যাঙ্গারে পাঠানো হয়েছে। এয়ারক্যাফটি ল্যান্ডিংয়ের আগে এর নিয়ন্ত্রণ প্যানেলে ল্যান্ডিং গিয়ারের (সমস্যার) ইন্ডিকেটর শো করে। এসব এয়ারক্যাফটে একটা সেকেন্ড অপশন থাকে। পাইলট সেই প্রসিডিউর অ্যাপ্লাই করে প্লেনটি সেইফলি ল্যান্ড করান।”

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন কামরুল ইসলাম জানান, এ ধরনের অবতরণকে তারা বলেন “টেকনিক্যাল” ল্যান্ডিং। এ সময় বিমানবন্দরের রানওয়ে খালি করে দেওয়া হয়। তবে শেষ পর্যন্ত উড়োজাহাজটি নিরাপদে অবতরণ করেছে, যাত্রীরাও নিরাপদে রয়েছেন। বিমানবন্দরে অন্য উড়োজাহাজ চলাচলও বাধাগ্রস্ত হয়নি।

এর আগে গত ১ ডিসেম্বর রাতে বিমানের আরেকটি ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজ ল্যান্ডিং গিয়ারের সমস্যা নিয়ে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে।

বিমানের বহরে থাকা মোট ২১টি উড়োজাহাজের মধ্যে পাঁচটি ড্যাশ-৮ ৪০০ মডেলের, এসব উড়োজাহাজে ৭৪টি করে আসন থাকে। মূলত স্বল্পদূরত্বের অভ্যন্তরীণ রুটে চালানোর জন্য এই উড়োজাহাজগুলো বহরে যুক্ত করেছে বিমান। 

কানাডা সরকারের সঙ্গে জি-টু-জি চুক্তিতে সে দেশের উড়োজাহাজ নির্মাতা কোম্পানি ডি হ্যাভিল্যান্ড বোম্বার্ডিয়ার অ্যারোস্পেস থেকে গত দুই বছরে এই উড়োজাহাজগুলো সংগ্রহ করা হয়। এত দ্রুত এসব উড়োজাহাজে সমস্যা দেখা দেওয়ায় বিমানের রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

বৃহস্পতিবার বিমানের একটি সুপরিসর বোয়িং-৭৮৭ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ যাত্রী নামানোর পর অঘটনের শিকার হয়। নিয়ম অনুযায়ী বোর্ডিং ব্রিজের সঙ্গে উড়োজাহাজের দরজার সংযোগ না খুলেই সেটি পার্কিংয়ে নেওয়ার জন্য ধাক্কা (পুশব্যাক) দিতে শুরু করেন রক্ষণাবেক্ষণে নিযুক্ত কর্মীরা। এতে কোনো ক্ষয়ক্ষতি হযনি জানালেও বিমান কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি করেছে।

এর আগে গত ১০ এপ্রিল বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে বিমানের একটি বোয়িংয়ের আরেকটি বোয়িংয়ের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে দুটো উড়োজাহাজই কিছুদিনের জন্য বসে যায়। সে ঘটনায় গত ১১ মে বিমানের মুখ্য (প্রিন্সিপাল) প্রকৌশলীসহ পাঁচজনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করার কথা জানায় বিমান।

এরপর গত ৪ জুন বিমানের দাঁড়িয়ে থাকা একটি বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজে বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস বাংলার একটি ব্যাগবাহী ট্রলি এসে ধাক্কা দিলে উড়োজাহাজটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিমানের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ মেরামতের অর্থ দিতে সম্মত হয়েছে।

About

Popular Links