Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পদ্মা সেতুর নাটবল্টু খুলে নেওয়া বায়েজিদ সাত দিনের রিমান্ডে

সোমবার পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠায়। শুনানি শেষে আদালত সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন

আপডেট : ২৭ জুন ২০২২, ১০:২২ পিএম

পদ্মা সেতুর নাটবল্টু খুলে গ্রেপ্তার হওয়া বায়েজিদ তালহাকে (৩১) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার (২৭ জুন) পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠায়। শুনানি শেষে আদালত সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। 

এর আগে বায়েজিদের বিরুদ্ধে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা করা হয়। পরে রাজধানীর শান্তিনগর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। 

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে সোমবার দুপুরে ঢাকায় সিআইডি সদর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ জানান, বায়েজিদের কর্মকাণ্ড অপরাধীর মতোই ছিল। পদ্মা সেতু নিয়ে অবজ্ঞাসূচক ভিডিও আপলোড করার পরপরই সে তার টিকটক এবং ফেসবুক আইডি ডিঅ্যাক্টিভ করে দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির পক্ষ থেকে বলা হয়, “অপরাধীরা অপরাধ করার পর যেসব কর্মকাণ্ড করে এই যুবকও (বায়েজিদ) তাই করেছে। তার গিল্টি মাইন্ড রয়েছে।”

ওই যুবকের পরিচয় ও তাকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে রেজাউল মাসুদ বলেন, “গ্রেপ্তার ওই যুবকের নাম বায়েজিদ তালহা। তার বাড়ি পটুয়াখালীতে হলেও বর্তমানে ঢাকার শান্তিনগরে থাকেন। তার টিকটক আইডি থেকে আপলোড করা ভিডিওতে দেখা যায়, সে নাটবল্টু খুলে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে মন্তব্য করছে। আমরা তাকে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় শান্তিনগর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছি।”

পদ্মা সেতুর নাটবল্টু কোনোভাবেই হাত দিয়ে খোলা সম্ভব না জানিয়ে রেজাউল মাসুদ বলেন, “এটি (নাটবল্টু) অবশ্যই কোনো যন্ত্র ব্যবহার করে খোলা হয়েছে, তাদের কোনো পরিকল্পনা আছে। তবে এখনই এ বিষয়ে আমরা বলতে পারব না। তদন্ত করেই সবকিছু জানানো হবে।”

বায়েজিদের অপরাধের বিষয়ে তিনি বলেন, “পদ্মা সেতু হলো বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় স্থাপনা। তার কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বড় ধরনের কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারতো। সেতুতে কোনো ঘটনা ঘটলে তার উচিৎ ছিল সেতু কর্তৃপক্ষ বা ওখানে থাকা পুলিশকে জানানো। কিন্তু সে সেটা করেনি। এটা অনেক বড় অপরাধ।”

এ ঘটনায় বায়েজিদ তিনটি অপরাধ করেছে উল্লেখ করে পুলিশ সুপার বলেন, “সে মানুষের অনুভূতিতে আঘাত করেছে, রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করেছে এবং অন্তর্ঘাতমূলক কাজ করেছে। তার (বায়েজিদ) অতীত অপরাধ-কর্মকাণ্ডসহ সবকিছু বিবেচনায় নিয়েই তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সবকিছু তদন্ত করা হবে।”

ঘটনার সময় বায়েজিদের সঙ্গে আরও একজন ছিল জানিয়ে তিনি বলেন, “আমাদের কাছে অনেক তথ্য আসছে, এখন পর্যন্ত আমরা দুজনের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছি। হয়ত আরও সম্পৃক্ততা আসতে পারে। তাই এ ঘটনায় কতজন জড়িত তা আমরা এখনই নির্দিষ্ট করে বলতে পারি না। ভিডিওটি আপলোড হওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যে আমাদের পর্যবেক্ষণে চলে আসে। আমরা এসব পর্যবেক্ষণ করছি।”

বায়েজিদের কোনো রাজনৈতিক পরিচয় আছে নাকি জানতে চাইলে রেজাউল মাসুদ বলেন, “রাজনৈতিক পরিচয় থাকতে পারে। কিন্তু আমরা তার অপরাধটাকেই গুরুত্ব দিয়ে দেখছি।”

About

Popular Links