Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রাজধানীতে গণপরিবহন সংকটে দুর্ভোগ চরমে

সড়কে গণপরিবহণ সংকটের কারণে অনেকেই হেঁটেই গন্তব্যে রওনা দিচ্ছেন

আপডেট : ০৮ জুলাই ২০২২, ১২:৪৮ পিএম

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানীজুড়ে ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে।

শুক্রবার (৮ জুলাই) সকাল থেকে নগরীর শ্যামলী, আসাদগেট, মোহাম্মদপুর, সায়েন্সল্যাব, শাহবাগে এ চিত্র দেখা যায়। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে অনলাইন গণমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউন।

যাত্রীরা বলছেন, দীর্ঘ সময় ধরে দাঁড়িয়ে থেকেও যাত্রীবাহী বাস পাওয়া যাচ্ছে না। এতে ঘরমুখো মানুষ ছাড়াও ঢাকায় অবস্থান করা জরুরি প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হওয়া মানুষেরাও বিপাকে পড়েছেন।

রাজধানীর শ্যামলীতে দেখা যায়, সড়কের দুইপাশেই জটলা পাকিয়ে অপেক্ষায় রয়েছেন অনেকেই। যেসব বাস আসছে সেসবও কানায় কানায় পূর্ণ। বাস থামলেও তাতে বেশিরভাগই উঠতে পারেননি।

এছাড়া বাসে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। কয়েকটি বাসের হেল্পারকে দেখা যায় যাত্রীদের ডাকাডাকি করতে। তারা বলছেন, গন্তব্য যেখানেই হোক, বাসে উঠলেই গুণতে হবে সর্বনিম্ন ১০০ টাকা।

ভাড়া বৃদ্ধির কারণ জানতে চাইলে একটি বাসের হেল্পার বলেন, সড়কে গাড়ি কম। আর ঈদের আগে, তাই একটু বাড়িয়ে নিচ্ছি।

একই অবস্থা রাজধানীর আসাদগেটেও। সেখানে বাসের অপেক্ষায় রয়েছেন শত শত মানুষ। 

সেখানে আজিজুল ইসলাম নামে একজনের সঙ্গে কথা হয়। মোহাম্মদপুর থেকে হেঁটে এসেছেন তিনি। জানালেন, অন্যান্য দিন বসিলা থেকে মিরপুর হয়ে আব্দুল্লাহপুরগামী প্রজাপতি ও পরিস্থান নামের দুটি পরিবহনের বাস অন্তত প্রতি ৫ মিনিট পরপর পাওয়া যায়। সেখানে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করেও একটি বাস পাননি তিনি। অবশেষে অন্য রুটের একটি বাসে মোহাম্মদপুর পর্যন্ত এসেছেন তিনি। সেখান থেকে হেঁটেই আসাদ গেট এসেছেন। কলাবাগানে তার গন্তব্য। বাস না পেয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষার পর ফের হাঁটা শুরু করলেন আজিজুল।

এদিকে গণপরিবহন সংকটের কারণে অতিরিক্ত ভাড়া হাঁকাচ্ছেন সিএনজি অটোরিকশা ও ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেলের চালকরা। শ্যামলী থেকে স্কয়ার হাসপাতালে যেতেই একজনকে দেখা যায় ২০০টাকা ভাড়া চাইতে। যেখানে নিয়মিত ভাড়া ১০০ থেকে ১২০ টাকা।

সড়কে গণপরিবহণ সংকটের কারণে অনেকেই হেঁটেই গন্তব্যে রওনা দিচ্ছেন।

About

Popular Links