Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ঈদ উপলক্ষে বিদ্যালয়কে ‘বিনোদনকেন্দ্রে’ রূপান্তর, ঢুকতে লাগে ২০ টাকা!

প্রধান শিক্ষক বলেন, ঈদের দিন ২০০ টিকিট বিক্রি হয়েছে। ঈদের তিন দিন পর্যন্ত বিদ্যালয় পরিদর্শনের ব্যবস্থা রাখার চিন্তাভাবনা আছে। দর্শনার্থীদের চাহিদা বিবেচনায় দিন বাড়ানো হতে পারে

আপডেট : ১২ জুলাই ২০২২, ০৯:২৫ পিএম

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে এক প্রধান শিক্ষক তার বিদ্যালয়কে “বিনোদনকেন্দ্রে” রূপান্তর করেছেন। উপজেলার চরভিটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে প্রবেশ করতে ২০ টাকা প্রবেশমূল্য নিয়ে থাকেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা তৈরি হওয়ায় বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস এবং প্রশাসন।

মঙ্গলবার (১২ জুলাই) সরেজমিনে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের ফটকে তালাবন্ধ। অফিস কক্ষের পাশেই ছোট্ট একটি প্রবেশপথ। টিকিট হাতে বসে আছেন এক আনসার সদস্য। বিদ্যালয়ে ঢুকতে জনপ্রতি ২০ টাকা মূল্যে বিক্রি করছেন তিনি।

টিকিট ব্যবস্থার কারণ জানতে চাইলে দর্শন নামে ওই আনসার সদস্য ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “চরভিটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এরফান আলী আমাকে টিকিট বিক্রি করতে বলেছেন।”

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, চরভিটা বিদ্যালয়ের মাঠ প্রাঙ্গণটি বেশ দৃষ্টিনন্দন করে সাজানো। পার্কের মতো সৌন্দর্যের কারণে আশপাশের মানুষ এখানে ঘুরতে আসেন। উপজেলায় তেমন বিনোদনের ব্যবস্থা না থাকায় ঈদ বা উৎসবের দিন প্রচুর মানুষ চরভিটা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভিড় করেন। এই সুযোগে অর্থ আয়ের চিন্তা থেকে প্রধান শিক্ষক টিকিটের ব্যবস্থা করেছেন।

চরভিটা বিদ্যালয়ে ঘুরতে আসা দর্শনার্থী শাহাদাৎ হোসেন ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “এতদিন আমরা শুনে এসেছি সরকারি প্রতিষ্ঠানের মালিক আমরা জনসাধারণ। অথচ মালিকদের প্রবেশের জন্য টিকিট সিস্টেম?”

দারাজ উদ্দিন ও চামেলি বেগম নামে অপর দুই দর্শনার্থী বলেন, “আমাদের ঘুরতে যাওয়ার মতো তেমন জায়গা নেই বলেই ঈদে এখানে ঘুরতে এসেছি। কিন্তু বিদ্যালয়ের ভেতরে ঢুকতে ২০ টাকা দিয়ে টিকিট কিনতে হয়েছে, যা দুঃখজনক।”

চরভিটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এরফান আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বিদ্যালয়ে প্রবেশের ক্ষেত্রে ২০ টাকা নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন। 

তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ঈদের দিন ২০ টাকা মূল্যে ২০০ টিকিট বিক্রি হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ঈদের তিন দিন পর্যন্ত বিদ্যালয় পরিদর্শনের ব্যবস্থা রাখার চিন্তা-ভাবনা আছে। দর্শনার্থীদের চাহিদা বিবেচনায় দিন বাড়ানো হতে পারে।” 

এ বিষয়ে হরিপুর উপজেলা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার এমএএস রবিউল ইসলাম বলেন, “সরকারি বিদ্যালয়ে প্রবেশের জন্য কোনো প্রকার টিকিট বিক্রি করতে পারবে না। কী কারণে প্রধান শিক্ষক টিকিট বিক্রি করছেন, তা ঠিক বুঝতে পারছি না। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।”

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মাহাবুবুর রহমান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “বিষয়টি ঠিক জানা ছিল না। হরিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি দেখা হবে।”

About

Popular Links