Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ঘুষে সরকারি চাকরি, ভাতাসহ প্রশিক্ষণ নিয়ে জানলেন সবই সাজানো!

তবে অভিযুক্তের হুমকির বিষয়ে থানায় অভিযোগ করলেও সোহাগ বা তার পরিবার মামলা করতে আগ্রহী নন। তারা ঘুষের টাকা ফেরত পেতে মীমাংসার পথে এগোতে চান

আপডেট : ১১ আগস্ট ২০২২, ০৫:০২ পিএম

ভূমি মন্ত্রণালয়ে কম্পিউটার অপারেটর কাম অফিস সহকারী পদে চাকরির জন্য প্রতিবেশী এক ব্যক্তিকে “১৩ লাখ ঘুষ” দিয়েছেন রংপুর শহরের দখিগঞ্জ এলাকার সোহাগ মিয়া। পরে পেয়েছেন “নিয়োগপত্র, যোগদানপত্র, নিয়মানুগ দুই মাসের ভাতাসহ প্রশিক্ষণ”।

প্রশিক্ষণ শেষে পোস্টিং পাওয়া নিয়ে সংশয় তৈরি হলে তিনি জানতে পারেন এতোসব আয়োজন সবই নকল ছিল। সাজানো ছিল। প্রতারণা। তবে অভিযুক্তের হুমকির বিষয়ে থানায় অভিযোগ করলেও তিনি বা তার পরিবার মামলা করতে আগ্রহী নন। তারা ঘুষের টাকা ফেরত পেতে মীমাংসার পথে এগোতে চান।

ভুক্তভোগী সোহাগ অনলাইন সংবাদমাধ্যম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, চাকরির দেওয়ার কথা বলে তার কাছ থেকে ১৩ লাখ টাকা নেন তার এলাকার আনোয়ার হোসেন নামে এক ব্যক্তি।

তিনি বলেন, “টাকা নেওয়ার কিছুদিনের মধ্যে নিয়োগপত্র ও যোগদানপত্র দেন আনোয়ার। পরে আমাকে ঢাকায় একটি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রেখে আনোয়ার বলেন, চাকরিতে যোগদান হয়েছে। এখানে ট্রেনিং করতে হবে। তিন মাস ট্রেনিং শেষে পোস্টিং হবে।”

তিনি আরও বলেন, “ট্রেনিং চলাকালে আমাকে বেতন হিসেবে দুই মাসে ২২ হাজার টাকা দেন আনোয়ার। সেই সঙ্গে বেতন, বিল, ভ্রমণভাতাসহ সরকারি দপ্তরের বেশকিছু ফরমও দেন তিনি। পরে পোস্টিং না হওয়ায় জানতে পারি সব ছিল সাজানো।”

অভিযুক্তের কোনো বক্তব্য বা মন্তব্য নেওয়া সম্ভভ হয়নি।

রংপুর কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোহেরুল ইসলাম বলেন, “অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্ত করছে পুলিশ। তবে সোহাগের পরিবার মামলা করতে আগ্রহী না। আনোয়ার কিছু টাকা তাদের ফেরত দিতে চাচ্ছেন বলে শুনেছি। তারা আপস-মীমাংসা করতে চান হয়তো।”

About

Popular Links