Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

তিন বছর ধরে ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে শিক্ষক মাসুদ কারাগারে

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক মাসুদ ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ভুক্তভোগীকে তার প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে বলেন। তার কথামতো ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হন ভুক্তভোগী

আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০২২, ১১:৫৯ এএম

মোবাইল ফোনে ধারণ করা অশ্লীল ভিডিও অনলাইন মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে তিন বছর ধরে ছাত্রীকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগে এক স্কুলশিক্ষককে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

সোমবার (২১ নভেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে অভিযুক্ত শিক্ষক জামিন আবেদন করলে রাজশাহী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক মুহা. হাসানুজ্জামান নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম মো. মাসুদ সরকার (৫০)। তিনি রাজশাহী জেলার মোহনপুর উপজেলার মৌগাছী বাটুপাড়া এলাকার বাসিন্দা এবং উপজেলার বাটুপাড়া কারিগরি ও বাণিজ্যিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষক।

ভুক্তভোগীর অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক মাসুদ ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ভুক্তভোগীকে তার প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে বলেন। তার কথামতো ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হন ভুক্তভোগী। ভর্তির পর ওই শিক্ষক ভুক্তভোগীর বাড়িতে প্রায়ই যাতায়াত করতেন। ২০১৯ সালের ১০ মে দুপুর আড়াইটায় পড়ালেখা সংক্রান্ত নোট দেওয়ার কথা বলে ভুক্তভোগীকে নিজের বাসায় ডেকে নেন শিক্ষক মাসুদ। এ সময় বাড়ির দোতলায় শয়নকক্ষ থেকে নোটগুলো নিয়ে আসতে বলেন মাসুদ।

সেখানে নোট নেওয়ার জন্য গেলে অভিযুক্ত শিক্ষক পিছু পিছু শয়নকক্ষে গিয়ে দরজা বন্ধ করে ধর্ষণ করেন ভুক্তভোগীকে। একইসঙ্গে মোবাইল ফোনে সেটি ধারণ করে রাখেন। পরে ব্ল্যাকমেইলিং করে তিন বছর ধরে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছেন শিক্ষক মাসুদ।

রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ আদালতের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট সৈয়দা শামসুন্নাহার মুক্তি জানান, আসামি জামিনের আবেদন করেছিলেন। আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। এ সময় আসামি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

About

Popular Links