Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ভোলায় শুরু হয়েছে পাখিশুমারি

প্রতিবছরের মতো এবারও এই শুমারির আয়োজন করেছে ‘বাংলাদেশ বার্ড ক্লাব’

আপডেট : ১৩ জানুয়ারি ২০২৩, ০৪:২২ পিএম

ভোলায় জলচর পরিযায়ী পাখিশুমারি শুরু হয়েছে। শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে ভোলার খেয়াঘাট থেকে ৮ সদস্যের একটি পাখি পর্যবেক্ষক দল ট্রলার নিয়ে এ কার্যক্রম শুরু করে।

আগামী ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত ৯ দিন দলটি নদীতে থাকবে।

প্রতিবছরের মতো এবারও এই শুমারির আয়োজন করেছে “বাংলাদেশ বার্ড ক্লাব”।

উৎসাহী পাখিপ্রেমী, পর্যবেক্ষক ও গবেষকদের স্বেচ্ছাশ্রমে ১৯৮৭ সাল থেকে এ পাখি শুমারি শুরু হয়।

গণনা শেষে প্রতিবেদনটি “ওয়েটল্যান্ডস ইন্টারন্যাশনাল” নামের আন্তর্জাতিক সংস্থা বই আকারে প্রকাশ করবে, যা পৃথিবীর জলচর পাখির গুরুত্বপূর্ণ দলিল বলে গণ্য করা হয়।

পাখি শুমারি দলে থাকা পর্বত আরোহী ও পাখি পর্যবেক্ষক এম.এ মুহিত জানান, “সারা বিশ্বের সঙ্গে মিলিয়ে উপকূলের প্রায় অর্ধশতাধিক চরসহ আশপাশের জল বিরল অংশে তারা পাখি গণনা করবে।”

“এর মধ্যে উল্লেখ যোগ্য- হাতিয়ার নিঝুম দ্বীপ, দমারচর, ভোলার ভাসান চর, সোনার চর, ঢালচর, চর শাহাজালাল, মোক্তারিয়া চ্যানেল, মনপুরা ও চর কুঁকড়িমুকড়ি।”

শুমারি দলে থাকা পাখি গবেষক সায়াম চৌধুরী বলেন, “শুধু পাখি গণনা নয়, পাখিদের জীবন, অবাধ বিচরণ নিশ্চিত করার পাশাপাশি পাখি রক্ষায় আগামী ৯ দিন উপকূলে কাজ করবে তারা।”

তিনি আরও বলেন, “উপকূলে দিন দিন পাখির সংখ্যা কমছে। শুধু বাংলাদেশেই নয় সারা বিশ্বেই কমে আসছে পাখি। এটি কিভাবে রোধ করা যায় সে জন্য মানুষের মধ্যে সচেতনতা প্রয়োজন। পাশাপাশি পাখির অভয়স্থল দিনে দিনে কমে যাচ্ছে। এদের টিকিয়ে রাখতে হবে, না হলে আমাদের পরিবেশ বিপন্ন হয়ে পরবে। তাই সকলকেই এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে তাহলে কিছুটা হলেও রক্ষা পাবে পাখি ও পরিবেশ।”

পাখি গণনা দলে আরও রয়েছে- পাখি পর্যবেক্ষক অনু তারেক, পাখি গবেষক নাজিম উদ্দিন প্রিন্স, মো. ফয়সাল, বন বিভাগের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও জীব বৈচিত্র্য কর্মকর্তা জোহরা মিলা, আইউসিএন বাংলাদেশের জ্যেষ্ঠ প্রোগ্ৰাম অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনিফার আজমিরী ও প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের গবেষণা কর্মকর্তা শিহাব খালেদীন।

এই দলটি ভোলার বিভিন্ন চর ও নদী এলাকায় যেয়ে সরজমিনে এ গণনার কাজ করবে।

About

Popular Links