Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সিরাজগঞ্জে ২৫০ বছরের পুরনো দই মেলা

জমিদারি আমলে তাড়াশের তৎকালীন জমিদার পরম বৈঞ্চব বনোয়ারী লাল রায় বাহাদুর প্রথম রশিক রায় মন্দিরের মাঠে দই মেলার প্রচলন শুরু করেছিলেন

আপডেট : ২৭ জানুয়ারি ২০২৩, ০৪:৫০ পিএম

সরস্বতী পূজা উপলক্ষে সিরাজগঞ্জের তাড়াশে শুরু হয়েছে আড়াইশ'' বছরের ঐতিহ্যবাহী দই মেলা। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) শুরু হওয়া এ মেলা চলবে শনিবার পর্যন্ত।

এটি মূলত শ্রী পঞ্চমী মেলা হলেও এলাকাবাসীর মুখে মুখে দই মেলা নামেই পরিচিত। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজা উপলক্ষে দিনব্যাপী এ মেলার আয়োজন করেন স্থানীয়রা।

ঐতিহ্যবাহী এই মেলাকে ঘিরে এলাকায় সাজসাজ রব পড়েছে।

স্থানীয়রা জানান, মেলা উপলক্ষে বুধবার বিকাল থেকে সিরাজগঞ্জ ও বগুড়ার নামিদামি ঘোষদের দই আসা শুরু করে। তবে মূলত বৃহস্পতিবার  ঐতিহ্যবাহী দইয়ের মেলা শুরু হয়েছে।

দিনব্যাপী মেলায় দইসহ রসনা বিলাসী খাবার ঝুরি মুড়ি, মুড়কি, চিড়া, মোয়া, বাতাসা, কদমা, খেজুরের গুড়সহ বাহারি সব খাবার বেচাকেনা হচ্ছে।

এ দই মেলা নিয়ে রয়েছে নানা গল্পকাহিনী। ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় যুগ যুগ ধরে অনুষ্ঠিত হয়ে আসা এই মেলা আগামী দিনে আরও প্রসারিত হবে, এমনটাই প্রত্যাশা দইপ্রেমীদের।

তাড়াশ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রজত ঘোষ বলেন, “জমিদারি আমলে তাড়াশের তৎকালীন জমিদার পরম বৈঞ্চব বনোয়ারী লাল রায় বাহাদুর প্রথম রশিক রায় মন্দিরের মাঠে দই মেলার প্রচলন শুরু করেছিলেন। সেসময় থেকেই প্রতি বছর চলছে এই দইমেলা। মেলায় আমদানি হওয়া দইগুলোর নামগুলোও ভিন্ন ভিন্ন।”

“এসব দইয়ের মধ্যে ক্ষীরসা দই, শাহী দই, চান্দাইকোনা, শেরপুরের দই, বগুড়ার দই, টক দই, ডায়াবেটিক দই, শ্রীপুরী দই উল্লেখযোগ্য।”

বৃহস্পতিবার সকালে শুরু হওয়া দিনব্যাপী এই মেলায় শুধু নয়, দইয়ের পাশাপাশি ঝুড়ি-বুন্দি, মুড়ি-মুড়কি, চিড়া, মোয়া, বাতাসা, কদমাসহ নানা স্বাদের বিভিন্ন রকমের সব খাবার বেচাকেনা হয়।

এছাড়া মেলায় দই নিয়ে আসা বিমল ঘোষ, মহাদেব ঘোষসহ একাধিক ঘোষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে দুধের দাম, জ্বালানি, শ্রমিক খরচ, দই পাত্রসহ সবকিছুর মূল্য বৃদ্ধির কারণে দইয়ের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে।

তবে মেলায় নিয়ে আসা প্রায় সব দই বিক্রি হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

About

Popular Links