Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘মেরিটাইম সেক্টর হতে পারে স্মার্ট বাংলাদেশের অর্থনীতির হাতিয়ার’

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, মেরিটাইম সেক্টর অপার সম্ভাবনার এক বিরাট ক্ষেত্র

আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:৩৬ পিএম

২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরিতে মেরিটাইম সেক্টর অর্থনীতির প্রধান হাতিয়ার হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, “মেরিটাইম সেক্টর অপার সম্ভাবনার এক বিরাট ক্ষেত্র। আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার অনেকটা আসে মেরিটাইম সেক্টর থেকে। আমাদের মেরিন ক্যাডেট ও রেটিংসরা দেশি বিদেশি জাহাজে চাকরি করে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্র অর্জন করেন। ২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরিতে অর্থনীতির প্রধান হাতিয়ার হতে পারে মেরিটাইম সেক্টর। মেরিটাইম সেক্টরকে পুরোপরি কাজে লাগাতে পারলে আমাদের রিজার্ভ দাঁড়াতো ২০০ বিলিয়ন ডলার। কিন্তু সেটি আমরা পারিনি।

শনিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ছোটজয়নগরে ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম একাডেমি পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মেরিটাইম ভিশনকে অনুসরণ করেই আমরা নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের উন্নয়নে কাজ করে চলেছি। বঙ্গবন্ধুই টেরিটোরিয়াল জোন এবং মেরিটাইম বাউন্ডরি অ্যাক্ট প্রণয়ন করেন। আমরা যা অর্জন করেছি, তা আমাদের মহান নেতার হাত ধরে এসেছে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে মেরিটাইম সেক্টর অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সবচেয়ে বেশি আঘাত আসে মেরিটাইম সেক্টরে। এ সেক্টর তেমন এগোয়নি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, “মেরিন ক্যাডেট তৈরির জন্য চট্টগ্রামে আমাদের মাত্র একটি মেরিন একাডমি ছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঠিক নির্দেশনার ফলে রংপুর, পাবনা, সিলেট  ও বরিশালে আরও চারটি নতুন মেরিন একাডেমি নির্মিত হয়েছে। সেখান থেকে অধিক সংখ্যক ক্যাডেট প্রতি বছর আমাদের  মেরিন বহরকে সমৃদ্ধ করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে যা আমাদের অর্থনীতিতে অবদান রাখছে। জাহাজের রেটিং তৈরির জন্য চট্টগ্রামে আমাদের একটি মাত্র মেরটিাইম ইনস্টিটিউট ছিল। ইতোমধ্যে মাদারীপুরে একটি মেরিটাইম ইন্সটিটিউট নির্মাণ করা হয়েছে। কুড়িগ্রামে আরও একটি মেরিটাইম ইনস্টিটিউট নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এতে করে দেশি-বিদেশি জাহাজে রেটিংদের চাকরির ক্ষেত্র আরও বৃদ্ধি পাবে এবং বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে আরও সহায়ক হবে।

“বৈশ্বিক অর্থনীতির চলমান টালমাটাল অবস্থার মধ্যেও আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ যথেষ্ট শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। কোভিড সময়কাল ও বৈশ্বিক অস্থিরতার মধ্যেও আমাদের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে, যা বিশ্বের বিভিন্ন গবেষণা সংস্থার প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ভিশন অনুযায়ী ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত দেশের কাতারে প্রবেশ করবে। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ হবে। উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়,” যোগ করেন তিনি।

পরে প্রতিমন্ত্রী একাডেমিতে “স্মৃতিস্তম্ভ” উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য মেহের আফরোজ চুমকী, ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম একাডেমির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমদাদুল হক চৌধুরী, একাডেমির কমান্ডেন্ট জাকী আহাদসহ ফ্যাকাল্টি মেম্বার্স, ক্যাডেটরা উপস্থিত ছিলেন।

About

Popular Links