Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

গুলিস্তানে বিস্ফোরণে নিহত ৮ জনের পরিচয় মিলেছে

ভবনটির বেজমেন্টে রেস্টুরেন্ট থেকে বিস্ফোরণের সূত্রপাত

আপডেট : ০৭ মার্চ ২০২৩, ০৯:০৬ পিএম

ঢাকার গুলিস্তানের একটি সাততলা ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহত আটজনের পরিচয় পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (৭ মার্চ) বিকেল ৪টা ৫০ মিনিটের দিকে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণের পর ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের ১১টি ইউনিট সেখানে উদ্ধার কাজ শুরু করে।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত অন্তত ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে; আহত হয়েছেন শতাধিক।

এতে নিহতরা হলেন, লালবাগের ইসলামবাগের বাসিন্দা মমিনুল ইসলাম (৩৮) ও তার স্ত্রী নদী আক্তার, কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার নলচড় গ্রামের ব্যাবসায়ী সুমন (২১), যাত্রাবাড়ির শেখদী পশ্চিম পাড়ার বাসিন্দা মুনসুর হোসাইন (৪০), বরিশাল কাজীরহাট চরসন্তশপুর গ্রামের বাসিন্দা ইসহাক মৃধা (৩৫), বংশাল আলুবাজারের বাসিন্দা মো: ইসমাইল হোসেন (৪২), কেরানীগঞ্জের দক্ষিণ চুন কুটিয়া মাস্টার বাড়ির বাসিন্দা মো. রাহাদ (১৮) ও চাদপুর মতলব উপজেলায় পশ্চিম লালপুর গ্রামের আলামিন (২৩)।

এছাড়া আরেক নারীসহ হতাহত বাকিদের পরিচয় মেলেনি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ফায়ার সার্ভিসের উপ পরিচালক দিন মনি শর্মা বলেন, “নর্থ সাউথ রোডের ১৮০/১ হোল্ডিংয়ে একটা ভবনে বিস্ফোরণ ঘটেছে। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।”

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বিস্ফোরণের ঘটনায় আটজনকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় আনা হয়েছিল। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও সাতজন মারা যান।

এদিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেছেন, “এখন পর্যন্ত ১৫ জনের মরদেহ ঢামেক হাসপাতালে রয়েছে। লাশগুলো ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে।”

এ বিষয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অপরাধ বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার ড. মহিউদ্দিন বলেন, “প্রাথমিকভাবে বিস্ফোরণের কারণ সম্পর্কে বলা খুবই মুশকিল। সালফারের গন্ধ বা বিস্ফোরকের গন্ধ ক্লিয়ার বোঝা যায়নি। কোনো ধরনের স্প্লিনটার আমাদের চোখে পড়েনি। আমাদের বিশেষজ্ঞ টিম কাজ করছে। ফায়ার সার্ভিসও কাজ করছে।”

ভবনটি ধসে পড়েনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, “ঘটনাস্থলের আশপাশের এলাকা তছনছ হয়ে গেছে। আমরা খতিয়ে দেখছি এ ঘটনাটি কীভাবে হয়েছে। এখন বিদ্যুৎ নেই। সেসব বিষয় দেখতে হচ্ছে। আশপাশের এলাকা নিরাপত্তা দিতে হচ্ছে।”

About

Popular Links