Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

টুঙ্গিপাড়ার পতিত জমির সবজি গণভবনে

টুঙ্গিপাড়ার পতিত জমিতে উৎপাদিত শাকসবজি ও ফলমূল বুধবার গণভবনে আনা হলে প্রধানমন্ত্রী তা পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি ফোনে টুঙ্গিপাড়ায় চাষাবাদের তিনটি ভিডিওচিত্র সবাইকে দেখান

আপডেট : ০৬ এপ্রিল ২০২৩, ১২:৩৪ পিএম

করোনাভাইরাস মহামারি, ইউক্রেন যুদ্ধ এবং বৈশ্বিক বাণিজ্যের ওপর বিভিন্ন বিধিনিষেধের কারণে দেশে খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন দুর্ভিক্ষ মোকাবিলায় সকলকে নিজ নিজ জায়গা থেকে প্রস্তুতি নিতে বলেছিলেন।

তিনি বারবার আহ্বান জানিয়েছিলেন, খাদ্যশস্য উৎপাদন বাড়াতে হবে। কোনো জমি যেন পতিত না থাকে সেই নির্দেশনা দিয়েছিলেন তিনি।

এ বছরের জানুয়ারির শুরুর সপ্তাহে টুঙ্গিপাড়ার পাটগাতী ইউনিয়নের পূর্বের বিলে অনাবাদি পৈত্রিক জমি পরিদর্শন করতে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। তখন তিনি জলাভূমির অন্তর্গত ওই অঞ্চলের জমিগুলোতে ভাসমান বেডে সবজি ও অন্যান্য ফসল চাষের নির্দেশনা দিয়েছিলেন। 

শুধু নির্দেশনা নয় প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে টুঙ্গিপাড়ার অনাবাদি ও জলাভূমিতে নিমজ্জিত জমিতে চাষাবাদ করা হয়। তিন মাসের মধ্যে পতিত জমি ভরে ওঠে ফুলে-ফলে-ফসলে। 

টুঙ্গিপাড়ার পতিত জমিতে উৎপাদিত শাকসবজি ও ফলমূল বুধবার (৫ এপ্রিল) গণভবনে আনা হলে প্রধানমন্ত্রী তা পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি ফোনে টুঙ্গিপাড়ায় চাষাবাদের তিনটি ভিডিওচিত্র সবাইকে দেখান।

দেশে অনাবাদি জমি

“অনাবাদি, পতিত জমি ও বসতবাড়ির আঙ্গিনায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান স্থাপন” ২০২১ সালে হাতে নেওয়া এই প্রকল্পের তথ্য অনুযায়ী, শুধু বসতবাড়িতেই পতিত জমি রয়েছে দুই লাখ হেক্টর। দেশের মোট অনাবাদি জমির মধ্যে তা অন্তত চার ভাগের এক ভাগ।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০১৯-২০২০ সালের “ভূমি ব্যবহার জরিপ”র তথ্য অনুযায়ী, দেশে আবাদযোগ্য জমির মোট পরিমাণ ৮৮ লাখ ২৯ হাজার হেক্টর। এর মধ্যে আবাদযোগ্য অনাবাদি জমি ৪ লাখ ৩১ হাজার হেক্টর।

গত বছরের নভেম্বরে সংবাদমাধ্যম জানায়, কাজে নেমে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জেলা পর্যায়ে অধিদপ্তরের ভূমি ব্যবহার হয় এমন ১০ লাখ ২৬ হাজার হেক্টর জমির প্রাথমিক তথ্য পেয়েছে।

দেশজুড়ে বসতবাড়ির আশপাশ, পাহাড়ি এলাকা, উপকূলীয় এলাকা, হাওরাঞ্চল, চর, বিরোধপূর্ণ জমি, অ্যাবসেন্টি জমি, প্রাতিষ্ঠানিক জমি, নিচু ও নিমজ্জিত জমি বছরের পর বছর ধরে অব্যবহৃত রয়েছে।

মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, তিন থেকে চার ধরনের অনাবাদি জমি রয়েছে।

এরমধ্যে এমন জমি রয়েছে যেগুলো পতিতই থাকছে, আবাদে আনা যাবে না; অনেক অনাবাদি জমি পড়ে আছে মালিককে খুঁজে বের করে ব্যবস্থা নিতে হবে; বসতবাড়ির আশপাশে পড়ে থাকে অনেক জমি; আবার অনেক জমি রয়েছে শুধু এক ফসলি হবে এবং কিছু জমি রয়েছে যেগুলোকে প্রকৃতভাবেই আবাদযোগ্য করে তোলা সম্ভব হবে।

টুঙ্গিপাড়ার পতিত জমির সবজি গণভবনে/ ফোকাস বাংলা
টুঙ্গিপাড়ার পতিত জমির সবজি গণভবনে/ ফোকাস বাংলা

About

Popular Links