Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পদ্মা সেতু প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধির ১৪ কারণ

এতে পদ্মা সেতু প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানো হয়েছে

আপডেট : ১৮ এপ্রিল ২০২৩, ০৭:১২ পিএম

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ (তৃতীয় সংশোধন) প্রকল্পে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এতে পদ্মা সেতু প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানো হয়েছে।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।

সংশোধিত প্রকল্প অনুযায়ী দুই হাজার ৪১২ কোটি ১৩ লাখ টাকা ব্যয় বাড়িয়ে প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৩২ হাজার ৬০৫ কোটি ৫২ কোটি টাকা।

একইসঙ্গে প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। প্রকল্পটির মেয়াদ এ বছরের জুনে শেষ হওয়ার কথা ছিল।

প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর জন্য পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় ১৪টি কারণ উল্লেখ করেছে।

তা হলো-

১. সরকার কর্তৃক বিভিন্ন সময় ভ্যাট ও আয়করের হার বৃদ্ধি

২. মূল সেতু ও নদীশাসন কাজের জন্য নিয়োজিত পরামর্শকের ব্যয় বৃদ্ধি

৩. জাতীয় মহাসড়ক এন-৮ এর কালভার্ট ও সড়কাংশ বর্ধিতকরণ

৪. সেতুর পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণ (O&M) এবং আনুষঙ্গিক সিভিল কাজের জন্য অতিরিক্ত কাজ সম্পাদন

৫. পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে ব্যয়

৬. বৈদেশিক মুদ্রার মান উঠানামা (Currency Fluctuation)

৭. মূল সেতু ও নদীশাসন কাজের ঠিকাদারগণ কর্তৃক অনিষ্পন্নকৃত দাবি (Claims) বাবদ অর্থের সংস্থান

৮. মূল সেতুর পাইলের ডিজাইন পরিবর্তন

৯. ৪০০ কেভি ট্রান্সমিশন টাওয়ারের ফাউন্ডেশন প্ল্যাটফর্ম নির্মাণের জন্য অতিরিক্ত অর্থ ব্যয়

১০. মাওয়া প্রান্তে নদীর গভীরে সৃষ্ট গর্ত ভরাটকাজ

১১. কাঁঠালবাড়ি থেকে বাংলাবাজার ফেরিঘাট স্থানান্তর করতে ব্যয়

১২. মাওয়া নদীশাসন কাজের ডিজাইন পরিবর্তন

১৩. জিও ব্যাগের সাইজ পরিবর্তনের কারণে ব্যয় বৃদ্ধি ও মাঝিকান্দি থেকে শিমুলিয়া পর্যন্ত বিআইডব্লিউটিএ ফেরি ১৪. চ্যানেল ড্রেজিং, ক্লোজার ড্যাম, সার্ভে ভ্যাসেল ক্রয়।

সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত পদ্মা সেতু গত বছরের ২৫ জুন উদ্বোধন করা হয়। পরদিন ২৬ জুন থেকে এটি যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের মুল অনুমোদিত অর্থ ছিল ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। পরবর্তীতে প্রথম দফায় এই অর্থ দ্বিগুণ বাড়িয়ে ২০ হাজার ৫০৭ কোটি ২০ লাখ টাকা করা হয়। এরপর দ্বিতীয় সংশোধনীতে তা বাড়িয়ে ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ ও বিশেষ সংশোধনী করে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা করা হয়েছিল।

পদ্মা নদীর ওপর ৯ দশমিক ৮৩ কিলোমিটার (মূল সেতু ৬.১৫ কি. মি ও ভায়াডাক্ট ৩.৬৮ কি.মি.) দৈর্ঘ্য এবং ২২ দশমিক ১০ মিটার প্রস্থ বিশিষ্ট বাংলাদেশের সবচেয়ে দীর্ঘতম সেতু নির্মাণ এটি।

মুন্সীগঞ্জ, মাদারীপুর ও শরীয়তপুর—এই তিন জেলার লৌহজং, শ্রীনগর, জাজিরা ও শিবচর উপজেলায় মূল অনুমোদিত প্রকল্পটি জুলাই ২০০৭ থেকে জুন ২০১৫ অনুমোদন দেওয়া হয়। এরপর প্রথম সংশোধিত প্রস্তাবে জানুয়ারি ২০০৯ থেকে ডিসেম্বর ২০১৫ মেয়াদে অনুমোদন দেওয়া হয়। এরপর ডিসেম্বর ২০১৮, ডিসেম্বর ২০১৯, জুন ২০২১। সর্বশেষ জুন ২০২৩ নাগাদ প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হওয়ার কথা থাকলেও জুন ২০২৪ নাগাদ মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়।

About

Popular Links