Saturday, June 15, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কৃষিমন্ত্রী: দেশে পর্যাপ্ত পেঁয়াজের মজুত, সিন্ডিকেটের কারণে দাম বেশি

কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ আছে। কৃষকের ঘরেও যথেষ্ট মজুত আছে। পেঁয়াজের দাম এত বেশি হওয়ার যৌক্তিক কোনো কারণ নেই। ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে বাজারে দাম বেশি

আপডেট : ২৩ মে ২০২৩, ০৫:০২ পিএম

দেশে বেড়েছে পেঁয়াজের উৎপাদন রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে। ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটি ভারত থেকে আমদানি করা থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। তবে হঠাৎ করেই পেঁয়াজের দাম প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে যায়। পেঁয়াজের দাম নিয়ে “ব্যবসায়ীক সিন্ডিকেট”কে দুষছেন সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীরা। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন, “পেঁয়াজের দাম না কমলে ভারত থেকে আমদানি করা হবে।”

এর মধ্যেই কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক জানালেন, “দেশে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ আছে। কৃষকের ঘরেও যথেষ্ট মজুত আছে। পেঁয়াজের দাম এত বেশি হওয়ার যৌক্তিক কোনো কারণ নেই। ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে বাজারে দাম বেশি।”

মঙ্গলবার (২৩ মে) দুপুর পাবনার সুজানগর উপজেলায় বাজার ও কৃষকের ঘরে পেঁয়াজ মজুতের প্রকৃত অবস্থা পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

পেঁয়াজ আমদানির বিষয়ে জানতে চাইলে কৃষিমন্ত্রী বলেন, “দেশে পেঁয়াজের মজুত পর্যালোচনা করে তারপর আমরা সিদ্ধান্ত নেব। আমি নিজে পরিদর্শন করছি এবং আমাদের কৃষি কর্মকর্তারা পরিদর্শন করছেন। পেঁয়াজের প্রকৃত অবস্থা বোঝার পরে আমরা আমদানির সিদ্ধান্ত নেব।”

তিনি বলেন, “কারণ কৃষকদের দাম পেতে হবে। গত ২ বছর তারা ভালো দাম পাননি।”

আরও পড়ুন- লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে বাংলাদেশের পেঁয়াজ ফলন, বিপাকে ভারত

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, গত ২০২১-২২ অর্থবছরে দেশে পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে ৩৬ লাখ টন। তার আগের বছর দেশে পেঁয়াজের উৎপাদন ছিল ৩৪ লাখ টন। গত ২০১৯-২০ অর্থবছর উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ২৬ লাখ টন। 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, যেভাবে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে, তাতে এবারও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যেতে পারে। এই সময়ে কৃষক যাতে ন্যায্যমূল্য পান, সে জন্য সরকার আমদানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। 

About

Popular Links