Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

গাছ লাগালেই অ্যাসাইনমেন্টের নম্বর পাবেন জবির ভূমি আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা

অ্যাসাইনমেন্টের নম্বর পেতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি ব্যবস্থাপনা ও আইন বিভাগের শিক্ষার্থীদের সুবিধামতো যেকোনো জায়গায় গাছ লাগাতে হবে

আপডেট : ০৯ জুন ২০২৩, ১১:০০ এএম

পুরো পৃথিবীজুড়ে জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবে বার্ষিক তাপমাত্রা বেড়ে চলেছে। সবুজায়নের দিকে নজর দিচ্ছে অনেক দেশ। বাংলাদেশও বিষয়টিকে গুরুত্বসহকারে নিয়েছে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গাছ লাগানোর ওপর জোর দিয়ে বলেছেন, এই বর্ষায় যেন সবাই অন্তত এক থেকে তিনটি গাছ লাগান। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামও গত মাসে জানিয়েছিলেন, আগামী দুই বছরে ঢাকায় দুই লাখ গাছ লাগানো হবে।

গাছ লাগানোর এই কর্মসূচিকে একাডেমিকভাবে পৃষ্টপোষকতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি ব্যবস্থাপনা ও আইন বিভাগ। বিভাগের সভাপতি ও সহযোগী অধ্যাপক ড. শারমিন আক্তার স্নাতকোত্তর বর্ষের একটি কোর্সে অ্যাসাইনমেন্টের বদলে গাছ লাগানোর ওপর নম্বর দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

ড. শারমিন আক্তার ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “পরিবেশ দিনদিন উত্তপ্ত হচ্ছে। এখন গাছ লাগানো আমাদের বেঁচে থাকার জন্যই অত্যন্ত দরকার। আমি স্নাতকোত্তর বর্ষে একটি কোর্সের ক্লাস নিই। সেটি ভূমি ব্যবস্থাপনার। এই কোর্সে শিক্ষার্থীরা অ্যাসাইনমেন্ট দিতো। আমি ভাবলাম গাছ লাগাতে তাদের উৎসাহ দিতে কোর্সের ৫ নম্বরের অ্যাসাইনমেন্টের বিপরীতে গাছ লাগানোর কর্মসূচি দিই। শিক্ষার্থীরাও এটিকে ইতিবাচক হিসেবে গ্রহণ করেছে।”

সামাজিক সচেতনা বৃদ্ধি করা জরুরি বলে মনে করেন তিনি। এই ৫ নম্বর পেতে শিক্ষার্থীদের সুবিধামতো যেকোনো জায়গায় গাছ লাগাতে হবে।

ঢাকা শহরে সবুজ বনায়ন দিনদিন কমে যাচ্ছে। নানা ধরনের অপরিকল্পিত উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করতে গিয়ে সবুজ ধ্বংস করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পরিবেশবাদিদের। তবে ঢাকাকে বাসযোগ্য করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছেন দুই নগরপ্রধান।

এর আগে গাছ লাগানোর ওপর গুরুত্ব দিয়ে ঢাকা উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছিলেন, “আমাদের শহরাঞ্চল আশপাশের গ্রামাঞ্চলের চেয়ে বেশি উত্তপ্ত। তাপপ্রবাহ একটি নীরব ঘাতক। জলবায়ু পরিবর্তনের এই বিরূপ প্রভাবে বেশি ক্ষতির মুখে আছে আমাদের নারী ও শিশুরা।”

সম্প্রতি ঢাকায় এক দিন গত ৫৮ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উত্তাপ ছিল। এটি নিয়ে এখনই সজাগ না হলে বার্ষিক তাপমাত্রা বাড়তেই থাকবে। 

তিনি আরও বলেছিলেন, “গাছ লাগানোর কোনো বিকল্প নেই৷ আগামী দুই বছরের মধ্যে আমি ঢাকা শহরে দুই লাখ গাছ লাগাব। এ ক্ষেত্রে আমি কমিউনিটি, পাড়া-মহল্লা, স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, শিক্ষক- সবার সাহায্য চাই।”

বসতিবিষয়ক জাতিসংঘের সংস্থা ইউএন হ্যাবিটেট-এর হিসাবে, একটি আদর্শ বড় শহরের কমপক্ষে ২৫% এলাকা সবুজ, ১৫% এলাকা জলাভূমি থাকতে হবে। 

তবে সম্প্রতি ঢাকা দুই সিটির ওপর চালানো সমীকক্ষা গবেষণায় দেখা গেছে, দুই সিটিই আদর্শ শহরের শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছে।

About

Popular Links