Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ক্যাটেল ট্রেনে ঢাকায় যাচ্ছে গরু, কমেছে খরচ

গরু ব্যবসায়ী কদ্দুছ ব্যাপারী বলেন, রাস্তাঘাট দিয়ে গরু নিয়ে গেলে অনেক জায়গায় চাঁদা দিতে হতো। রাস্তার ঝাঁকুনিতে গরুর অবস্থাও খুবই খারাপ হয়ে যেতো। ট্রেনে গেলে তেমন কোনো ঝামেলা হয় না। খরচও ট্রাক ভাড়ার চেয়ে কম

আপডেট : ২৪ জুন ২০২৩, ০৯:১৬ পিএম

ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে পশু পরিবহনের জন্য জামালপুর ও ঢাকার মধ্যে চলাচল করছে ৩টি স্পেশাল ক্যাটেল ট্রেন। জেলার ইসলামপুর ও মেলান্দহ স্টেশন থেকে প্রত্যেকদিন চলাচল করছে এসব ট্রেন।

শনিবার (২৪ সন্ধ্যায় ২৫টি ওয়াগনে ৪০০ গরু নিয়ে ইসলামপুর বাজার স্টেশন ছেড়ে যায় প্রথম ক্যাটেল স্পেশাল ট্রেন।

রাত ৯টার দিকে ইসলামপুর থেকে ছেড়ে যাবে আরও একটি ট্রেন। সেখানে ১৯টি ওয়াগনে ১৬টি করে মোট ৩০৪টি গরু বহন করা হবে। পরে মেলান্দহ স্টেশন থেকে আরও ৬টি ওয়াগনে ১৬টি করে ৯৬টি গরু নিয়ে ট্রেনটি ঢাকায় পৌঁছাবে। গতবছরের চেয়ে এ বছর চাহিদা বেশি থাকায় দুইদিন এ সার্ভিস চালু থাকবে।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, প্রতিটি ট্রেনে ২৬টি করে ওয়াগন থাকবে, এরমধ্যে ২৫টি ওয়াগনের প্রত্যেকটিতে ১৬টি করে গরু বহন করা যাবে। এ বছর ইসলামপুর থেকে ৬২টি ও মেলান্দহ স্টেশন থেকে ৬টি ওয়াগন বুকিং করেছে গরু ব্যবসায়ীরা। প্রতিটি ওয়াগনের ভাড়া ৮,০০০ টাকা করে নির্ধারণ করা হয়েছে। 

গরু ব্যবসায়ী সুলতান মিয়া, সামাদ মিয়া, বছির সেখসহ আরও অনেকেই বলেন, “এই সেবা চালু থাকায় আমরা অনেক খুশি। আগে এক ট্রাক গরু ঢাকা নিয়ে গেলে খরচ হতো ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা। এখন মাত্র আট হাজার টাকায় ১৬টি গরু এক ওয়াগনে আরামে নিয়ে যাওয়া যাচ্ছে।”

ইসলামপুর উপজেলার সিরাজাবাদ এলাকায় গরু ব্যবসায়ী কদ্দুছ ব্যাপারী বলেন, “রাস্তাঘাট দিয়ে গরু নিয়ে গেলে অনেক জায়গায় চাঁদা দিতে হতো। রাস্তার ঝাঁকুনিতে গরুর অবস্থাও খুবই খারাপ হয়ে যেতো। ট্রেনে গেলে তেমন কোনো ঝামেলা হয় না।”

ইসলামপুর বাজার রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার শাহীন মিয়া জানান, ২০২০ সাল থেকে কম খরচে কোরবানির পশু পরিবহনের জন্য ক্যাটেল স্পেশাল নামে বিশেষ ট্রেন চালুর উদ্যোগ নেয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

তিনি বলেন, “অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনের ভালো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। ট্রেনে পশু পরিবহনে খরচ কমার পাশাপাশি এড়ানো যাবে ভোগান্তি। এছাড়া এই পরিবহনে দুর্ঘটনার ঝুঁকিও কম।”

About

Popular Links