Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ছেলে নৌকার প্রার্থী, বাবা বিদ্রোহী!

তবে বাবা-ছেলে পরস্পরের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কি-না সেটি নিশ্চিত হওয়া যাবে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে

আপডেট : ১৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৪৮ পিএম

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের পঞ্চম ধাপে রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার যশাই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে লড়বেন বাবা-ছেলে। একই ইউনিয়নে বাবা-ছেলের প্রতিদ্বন্দ্বিতার খবরে উপজেলাজুড়ে তুমুল আলোচনা চলছে।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম খান এবার আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে হয়েছেন বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী। অন্যদিকে, তার ছেলে আবু হোসেন খান পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক এবার নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী হয়েছেন।  

রবিবার (১২ ডিসেম্বর) রিটার্নিং কর্মকর্তা ডা. প্রভাষ সেন এ নির্বাচনে যশাই ইউনিয়নের যাচাই-বাছাই করে বাবা-ছেলের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, আগামী ৫ জানুয়ারি পাংশার ১০টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এসব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ১০ জন, জাসদের ২ জন, জাকের পার্টির ১ জন ও স্বতন্ত্র ৪৮ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এছাড়া, সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১১৬ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৬৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাবেক চেয়ারম্যান হাকিম খান বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ। তিনি দীর্ঘদিন যশাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া, তিনি ওই ইউনিয়নে একাধিকবার চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হন। এবারের নির্বাচনে দল থেকে তাকে মনোনয়ন না দিয়ে তার ছেলে আবু হোসেনকে বেছে নিয়েছে। তবে তিনি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

এ বিষয়ে যশাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের একাধিক কর্মী জানান, নির্বাচনে বাবা-ছেলের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তারা মহাবিপদে রয়েছেন। বাবা ও ছেলে দুজনই আওয়ামী লীগের নেতা। বাবার পক্ষে গেলে ছেলের বকা শুনতে হয়। আর ছেলের পক্ষে গেলে বাবার বকা শুনতে হয়। বাবা-ছেলের লড়াইয়ের কারণে তাদের কেউই না জিততে পারলে ইউনিয়নে নৌকার পরাজয় হতে পারে।

বর্তমানে এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে আছেন মো. সিদ্দিকুর রহমান। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসবে গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী আব্দুল হাকিম খানকে পরাজিত করে তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। বাবা-ছেলের লড়াইয়ের কারণে এবারও তিনি নির্বাচিত হতে পারেন।

বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল হাকিম বলেন, “আমি এ ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান। দল থেকে আমাকে মনোনয়ন না দেওয়ায় আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছি। এলাকায় আমার ভালো জনপ্রিয়তা রয়েছে। সাধারণ ভোটাররা আমার সঙ্গে রয়েছে। তাই আমি নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। কিন্তু নির্বাচনী প্রচারণাকালে আমাকে নানাভাবে হয়রানি ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে।”

আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী আবু হোসেন খান বলেন, “এ ইউনিয়নে আমার ব্যাপক জনপ্রিয়তা। তাই দল থেকে আমাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। আমার বাবা এ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি আসন্ন নির্বাচনে আমার প্রতিপক্ষ হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। তিনি তার মতো নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাকে কোনো হয়রানি ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে না।”

এ বিষয়ে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ডা. প্রভাষ সেন বলেন, যশাই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বাবা-ছেলে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। গত রবিবার যাচাই-বাছাই করে দুজনের মনোনয়নপত্রই বৈধ ঘোষণা করা হয়। আগামী ১৯ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। বাবা-ছেলে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কি-না সেটি জানতে প্রত্যাহারের শেষ দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

About

Popular Links