Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি, কারাগারে টাঙ্গাইলের পৌর কাউন্সিলর

৯ জুন পৌরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আতিকুর রহমান মোর্শেদ বাদি হয়ে স্বপনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৬ পিএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় কারাগারে পাঠানো হয়েছে টাঙ্গাইল পৌরসভার কাউন্সিলর হাফিজুর রহমান স্বপনকে।

রবিবার (১৭ অক্টোবর) টাঙ্গাইলের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে তিনি জামিন আবেদন করেন। আদালতের বিচারক সাউদ হাসান তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, টাঙ্গাইল পৌরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং প্যানেল মেয়র-১ হাফিজুর রহমান গত ৫ জুন শহরের আকুরটাকুর পাড়ায় একটি জমি পরিমাপকে কেন্দ্র করে ওই জমির মালিকের জামাতার সাথে কথা বলেন। কথা বলার এক পর্যায়ে তিনি তাকে বলেন “আমি প্রধানমন্ত্রী শেখা হাসিনাকেও মানি না।” এছাড়া তিনি নানা অশ্লীল কথা বলেন। তার এই বক্তব্যের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়।

৯ জুন পৌরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আতিকুর রহমান মোর্শেদ বাদি হয়ে স্বপনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন। এ ছাড়াও মুঠোফোনে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় শহরের আকুরটাকুর পাড়ার প্রয়াত আশরাফ চৌধুরীর জামাতা মফিজুর রহমান টাঙ্গাইল সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।

মামলা হওয়ার পর হাফিজুর আত্মগোপনে চলে যান। পরে উচ্চ আদালতে গিয়ে আট সপ্তাহের জামিন লাভ করেন। রাষ্ট্রপক্ষ এই জামিনের বিরুদ্ধে আপিল করে। পরে তার আট সপ্তাহের জামিন বাতিল করে এক সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে হাজির হওয়ার আদেশ দেন।

টাঙ্গাইলের কোর্ট ইন্সপেক্টর তানভীর আহমেদ বলেন, “হাফিজুর চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। আদালতের তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। পরে তাকে টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।”

উল্লেখ্য, এই মামলা দায়েরের পর পৌর পরিষদের সভায় তাকে প্যানেল চেয়ারম্যানের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এছাড়াও তাকে টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

About

Popular Links