Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

একমাস ধরে বন্ধ হাসপাতালটির প্যাথলজি পরীক্ষা!

খুলনার শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতালটিতে রয়েছে চিকিৎসক সঙ্কটও

আপডেট : ১৬ নভেম্বর ২০২১, ০৪:২৭ পিএম

খুলনার শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতালটিতে একমাস ধরে প্যাথলজি পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও হাসপাতালটিতে রয়েছে চিকিৎসক, নার্সসহ জনবল সঙ্কটও। ফলে রোগীরা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

১৪ অক্টোবর থেকে হাসপাতালটির প্যাথলজি বিভাগের হরমোন পরীক্ষা, টি ফোর, টি থ্রি, টিএসএইচ, ট্রোপো নাইন, এইচবিএ ওয়ানসি, পিএস, এএইচবিআইসি, সিরাম, ক্রিরেটাইন পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। হাসপাতালে আগে স্বল্প খরচে এই প্যাথলজি বিভাগে জরুরি মুহূর্তে রোগীরা পরীক্ষাগুলো করানোর সুযোগ ছিল। কিন্তু এখন এসব পরীক্ষা বন্ধ থাকায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন রোগীরা। বাইরের প্যাথলজিতে পরীক্ষাগুলো করাতে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে।

আবু নাসের হাসপাতালের প্যাথলজি বিভাগের প্রধান ডা. সুকুমার সাহা বলেন, “রি-এজেন্ট’র অভাবে কয়েকটি পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। নতুন দরপত্র আহবান না করা পর্যন্ত এসব পরীক্ষা চালু হওয়ার সম্ভাবনা কম।”

আবু নাসের হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মোর্শেদ আলম বলেন, “হাসপাতালে বর্তমানে বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে। বিশেষ করে চিকিৎসক, জনবল সঙ্কট প্রকট। ৪২ জন মেডিকেল কর্মকর্তাদের মধ্যে ১২ জন রয়েছেন। এ কারণে অতিরিক্ত রোগীর চাপ সামলানো কঠিন হচ্ছে। তাছাড়া “রি-এজেন্ট”র ঘাটতির কারণে প্যাথলজি বিভাগে কয়েকটি পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।”

ডুমুরিয়া উপজেলা থেকে এ হাসপাতালে আসা রোগী আফরোজা জান্নাত বলেন, “হাসপাতালে এসে টিকিট কেটেও স্বামীর চিকিৎসা করাতে পারিনি। চিকিৎসক না থাকার কারণে টিকিটটি গ্রহণ করেনি। স্বামী নারকেল গাছ থেকে পড়ে কোমরে আঘাত পেয়ে অসুস্থ রয়েছেন।”

মহানগরীর খালিশপুর এলাকার আজমল হোসেন বলেন, “বাবার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। সেখানে তার পর্যাপ্ত চিকিৎসা সেবা হচ্ছে না। আবু নাসের হাসপাতালে ভর্তি করা জরুরি। কিন্তু সেখানে বেড খালি নেই।”

About

Popular Links