Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বঙ্গবন্ধু ট্রাই-টাওয়ার: দক্ষিণ এশিয়ার সর্বোচ্চ ভবন

প্রস্তাবিত তিনটি ভবন ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের শহীদ এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের প্রতিনিধিত্ব করবে

আপডেট : ২৭ মার্চ ২০২২, ০৫:১৬ পিএম

রাজধানীর পূর্বাচলে আগামী এক দশকের মধ্যে নির্মিত হতে যাচ্ছে একটি বিশ্বমানের বাণিজ্যিক অঞ্চল। সেখানে থাকছে “বঙ্গবন্ধু ট্রাই-টাওয়ার” নামে তিনটি অত্যাধুনিক, সুউচ্চ ভবন। বলা হচ্ছে, নির্মাণকাজ শেষ হলে এগুলোই হবে বাংলাদেশ তথা দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে উঁচু ভবন।

১১৪ একর জমির ওপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু ট্রাই-টাওয়ার ৪৯টি বাণিজ্যিক ভবনে বেষ্টিত থাকবে। প্রতিটি ভবন হবে ৪০ তলা বিশিষ্ট এবং ভবন চত্বরে অর্ধেকেরও বেশি জায়গা খোলা রাখা হবে।

খসড়া নকশা অনুযায়ী, ট্রাই-টাওয়ার হবে বিশ্বের সবচেয়ে লাভজনক অবকাঠামোগুলোর একটি এবং দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে উঁচু ভবন।

ইতোমধ্যে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এই আকাশচুম্বী ভবন নির্মাণ প্রকল্পটি বাস্তবায়নে কাজ করছে। এই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৯৬ হাজার কোটি টাকা।

ভবন কমপ্লেক্সে একটি লেক, একটি স্টেডিয়াম, শপিং মল, বিনোদন পার্ক, ফাইভ-স্টার হোটেলের পাশাপাশি হাজার হাজার স্মার্ট এন্টারপ্রাইজের জন্য কর্পোরেট অফিসের জায়গা থাকবে।

এদের মধ্যে সবচেয়ে উঁচু ভবন “লিগ্যাসি টাওয়ার”-এর উচ্চতা ৪৭৩ মিটার এবং সেটি ১১১ তলা হবে। ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার ক্ষমতাগ্রহণ স্মরণে ভবনটির ৯৬ তলায় একটি জাদুঘর স্থাপন করা হবে।

প্রাথমিকভাবে সর্বোচ্চ ভবনটি ১৪১ তলা করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (সিএএবি) আপত্তির কারণে পরিকল্পনাটি বাদ দেওয়া হয়। ফলে, “লিগ্যাসি টাওয়ার”-এর সংশোধিত উচ্চতা এখনও অনুমোদিত হয়নি।

এছাড়া, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য ৭১ তলা ভবন “লিবার্টি টাওয়ার” নির্মাণ করা হবে। যার আনুমানিক উচ্চতা ৩৩৮ মিটার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

“ল্যাঙ্গুয়েজ মুভমেন্ট” নামে তৃতীয় ভবনটি ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনকে প্রতিনিধিত্ব করার জন্য ৫২ তলাবিশিষ্ট হবে। প্রাথমিক নশকায় যার আনুমানিক উচ্চতা ২৫৯ মিটার বলা হয়েছে।

প্রকল্পের তাৎপর্য

প্রস্তাবিত তিনটি ভবন ভাষা সৈনিক ও মুক্তিযোদ্ধা এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের প্রতিনিধিত্ব করবে।

বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান সিকদার গ্রুপ এবং জাপানের কাজিমা কর্পোরেশনের যৌথ উদ্যোগে ট্রাই-টাওয়ার কমপ্লেক্সের নকশা করা হয়েছে। প্রকল্প কর্মকর্তারা ২০৩০ সালের মধ্যে এটি বাস্তবায়নের আশা করছেন।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ট্রাই-টাওয়ার কমপ্লেক্সটি অত্যন্ত নজরকাড়া আঙ্গিকে মেগা-কাঠামোতে তৈরি করা হচ্ছে। যা সহজেই বিদেশি বিনিয়োগকারীদের এবং দুবাইয়ের বুর্জ খলিফায় ভ্রমণ করেন এমন পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে পারবে।

রাজউকের পূর্বাচল প্রকল্পের ১৯ নম্বর সেক্টরে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সরকারি সংস্থার জমিতে পাওয়ার প্যাক-এর যৌথ উদ্যোগে ও সিকদার গ্রুপের পরিকল্পনায় এবং কাজিমা কর্পোরেশনের অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

এ বিষয়ে রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী (বাস্তবায়ন) এবং প্রকল্প পরিচালক উজ্জ্বল মল্লিক বলেন, “রাজউক এবং পাওয়ার প্যাকের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক চুক্তির পর প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।”

তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “পাওয়ার প্যাক তাদের নিজস্ব তহবিল খরচ করে বা বেসরকারি বিনিয়োগকারীদের আউটসোর্সিং করে প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে।”

অন্যদিকে, কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ পানি সরবরাহ, বিদ্যুৎ, ভূগর্ভস্থ টেলিকম নেটওয়ার্ক এবং বিশেষ পরিবহন সুবিধা নিশ্চিত করবে।

কর্মকর্তারা জানান, একটি আন্তর্জাতিক মানের পরিবহন ব্যবস্থা নির্মাণ করা হবে। এর ফলে সেখানে ভ্রমণে আসা অথবা কর্মীরা দ্রুত যাতায়াতের জন্য মেট্রো রেল, আন্ডারপাস এবং বৈদ্যুতিক বাস ব্যবহার করতে পারবেন।

কাজের অগ্রগতি

কর্তৃপক্ষ বর্তমানে ১১১ তলাবিশিষ্ট লিগ্যাসি টাওয়ারের পাইলিং কাজ পরিচালনা করছে।

প্রকল্প পরিচালক বলেন, “আমরা লিগ্যাসি টাওয়ারের একটি নকশা পেয়েছি। বর্তমানে সে অনুযায়ী পাইলিংয়ের কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।”

তিনি বলেন, “আমরা এখনও সিএএবি থেকে কোনো ‘অনাপত্তি সনদ’ পাইনি, যে কারণে নির্মাণ কাজটিও বিলম্বিত হচ্ছে।”

এ বিষয়ে সিএএবি চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেন, “আমরা প্রকল্পের নথি নিয়ে কাজ করছি। শিগগিরই আমাদের মতামত জানাবো।”

বিশিষ্ট পরিবহন বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক শামসুল হক বলেন, “বঙ্গবন্ধু ট্রাই-টাওয়ার বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে সরকারের একটি ভালো উদ্যোগ।”

তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “তবে সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং বিষয় হলো প্রথম ব্যবসায়িক জেলায় একটি বৈশ্বিক মানের পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা, কারণ ঢাকার বিদ্যমান ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর তুলনায় সবচেয়ে খারাপ।”

About

Popular Links