Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বাগেরহাটে প্রতিপক্ষের হামলায় আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত

এ সময় আরও ৩ জন আহত হয়েছেন

আপডেট : ১৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:২৩ পিএম

বাগেরহাটের রামপাল উপজেলায় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ফিরোজ ঢালী (৪৫) নামে এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত হয়েছেন। 

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৭ ডিসেম্বর) বেলা ১১টার দিকে রামপাল উপজেলার কাদিরখোলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। নিহত ফিরোজ ঢালী রামপাল উপজেলার কাস্টোবাড়িয়া এলাকার বাসিন্দা।

এ সময় ফিরোজের সঙ্গে থাকা আরও তিনজন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন- কাদিরখোলা এলাকার আওরঙ্গজেব (৪২), হানিফ (৩৮) আকরাম ঢালী (৪৭)। তারা প্রত্যেকেই রামপাল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও রামপাল সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জামিল হাসান জামু’র সমর্থক।

এ বিষয়ে জামিল হাসান জামু বলেন, “সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে আমাকে বাড়িতে নামিয়ে দিয়ে ফিরোজ ঢালীসহ চারজন কাদিরখোলা এলাকায় যাচ্ছিল। কিছুদূর যাওয়ার পরে বেলাল ব্যাপারী, তার ভাই বাকি ডাকাতসহ ৩০-৪০ জনের একটি দল ফিরোজদের গতিরোধ করে। তাদের মারপিটে ফিরোজরা জ্ঞান হারালে হামলাকারীরা তাদের আহত অবস্থায় রাস্তায় ফেলে দিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে প্রথমে রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফিরোজ ঢালী মারা যান।

আহতদের মধ্যে হানিফ খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও বাকি দুইজন রামপাল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত বেলাল ব্যাপারি বলেন, “১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার অপরাধে জামু’র লোকেরা আমাদের হামলা করেছিল। তারই সূত্র ধরে আমার লোকেরা ফিরোজের ওপর হামলা করেছিল। তবে এ ঘটনায় কেউ মারা গেছেন কি-না আমি জানি না।”

রামপাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শামসুদ্দিন ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, “স্থানীয় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন মারা গেছেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।”

তিনি জানান, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এখনও কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শিগগিরই আইনের আওতায় আনতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।

About

Popular Links