Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কক্সবাজারে স্কুলছাত্রী ধর্ষণ: প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার ৩

কক্সবাজারের কলাতলীতে মামস্ নামে একটি আবাসিক হোটেলে অষ্টম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীকে দুইদিন আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়

আপডেট : ২৮ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৩৮ পিএম

কক্সবাজারের কলাতলীতে মামস্ নামে একটি আবাসিক হোটেলে অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে দুইদিন আটকে রেখে ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত আশিকসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ও র‍্যাব সদস্যরা।

সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) রাত ও মঙ্গলবার সকালে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ঢাকা ট্রিবিউনকে গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার সদর থানার ওসি শেখ মুনীর-উল গীয়াস।

তিনি জানান, কক্সবাজার শহরের একটি হোটেলে স্কুল শিক্ষার্থীকে দুইদিন আটকে রেখে ধর্ষণের ঘটনায় মামলার এজাহারভূক্ত ৪ নম্বর আসামি এবং শহরের উত্তর নুনিয়াছড়া এলাকার মো. কামরুল এবং মামস্ গেস্ট হাউজের ম্যানেজার মোহাম্মদ শাহীনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

অন্যদিকে, র‌্যাব-১৫ কক্সবাজারের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খায়রুল ইসলাম জানিয়েছেন, স্কুল শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত আশিককে চট্টগ্রামের আনোয়ারা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ওই স্কুলছাত্রী বাড়িতে ফেরার সময় মো. আশিকসহ ৩ থেকে ৪ জন যুবক তাকে জোর করে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। পরে শহরের মামস্ গেস্ট হাউজে দুইদিন আটকে রেখে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় গত ১৮ ডিসেম্বর ভূক্তভোগী ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে পাঁচ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ৪ জনসহ মোট নয়জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

এর আগে, গত ২২ ডিসেম্বর কক্সবাজার শহরের কলাতলীর জিয়া গেস্ট ইন হোটেল থেকে  এক নারী পর্যটককে উদ্ধার করে র‍্যাব। ওই নারীর অভিযোগ, আশিকুল ইসলাম আশিক নামের এক যুবকের নেতৃত্বে কয়েক দফায় ধর্ষণের শিকার হয়েছেন তিনি। ইতোমধ্যে এ ঘটনায় চার জনের নাম উল্লেখ করে ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। 

শিগগিরই কক্সবাজারের আবাসিক হোটেল ও মোটেলগুলোতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও নজরদারি নিশ্চিত করা না হলে পর্যটন শিল্পের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা সংশ্লিষ্টদের।

About

Popular Links