Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

একই ভোটকেন্দ্রে দ্বিতীয়বার যাননি, দাবি হিরো আলমের

ঢাকা-১৭ আসনের উপ-নির্বাচনের শেষ দেখে ছাড়বেন বলেও মন্তব্য করেন হিরো আলম

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২৩, ০২:৪৩ পিএম

ঢাকা-১৭ আসনের উপ-নির্বাচনের ভোটের ফল বাতিল করে পুনর্নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম।

রবিবার (২৩ জুলাই) আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) গিয়ে এ সংক্রান্ত আবেদন করেন তিনি। 

আবেদনের বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে হিরো আলম বলেন, “ঢাকা-১৭ আসনে জাল ভোট পড়েছে। সেই ভিডিও ফুটেজ অমার কাছে রয়েছে। তাই মাননীয় স্পিকারকে অনুরোধ করবো, ভিডিও ফুটেজ দেখে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে কি-না, তা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত যেন আরাফাত ভাইকে শপথ বাক্য না পড়ান।”

এদিকে, ভোটের দিন বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে তিনি দ্বিতীয়বার যাননি বলেও দাবি করেন হিরো আলম। 

গত ১৭ জুলাই ঢাকা-১৭ আসনের উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণের শেষভাগে বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে মারধরের শিকার হন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের আলোচিত মুখ হিরো আলম।

এ প্রসঙ্গে শনিবার রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক জানান পুলিশকে না জানিয়ে একই কেন্দ্রে দ্বিতীয়বার যাওয়ায় ঢাকা-১৭ আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য প্রার্থী আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমকে নিরাপত্তা দিতে পারেনি পুলিশ। সেই সুযোগে দুষ্কৃতকারীরা হামলা করে থাকতে পারে বলে জানান তিনি।

তবে ডিএমপি কমিশনারের বক্তব্য অস্বীকার করে হিরো আলম বলেন, “কমিশনার ফারুক স্যার যে কথা বলেছেন, তা দুঃখজনক ও লজ্জাজনক। তার যদি লজ্জা থাকত তাহলে এমন কথা বলত না। উনি বলেছেন আমি একই কেন্দ্রে দুইবার গিয়েছি। আমি আপনাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আপনার ভিডিও ফুটেজগুলো দেখবেন, আমি ওই কেন্দ্রে দুইবার গিয়েছি কি-না। আমি ওই কেন্দ্রে একবারই গিয়েছিলাম।” 

ভোটে অনিয়ম ও জাল ভোটের ফুটেজ রয়েছে দাবি করে এ সময় তিনি বলেন, “আমি এই নির্বাচনের শেষ দেখে ছাড়ব।”

ইসিতে আপিল খারিজ করলে কী করবেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “যেহেতু ভোটে অনিয়ম ও জাল ভোটের ফুটেজ রয়েছে, তাই হাইকোর্টে যাব।”

এদিকে, ইসিতে জমা দেওয়া আবেদনে হিরো আলম বলেছেন, গত ১৭ জুলাই অনুষ্ঠিত ঢাকা-১৭ সংসদীয় আসনের উপ-নির্বাচনে আমি আরশাফুল হোসেন আলম (হিরো আলম) নির্বাচনে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে একতারা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করি। নির্বাচনের দিন ১৭ জুলাই ই-মেইলের মাধ্যমে আপনাকে অবহিত করেছিলাম এই মর্মে যে, নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরুর এক ঘণ্টার মধ্যে আমার তালিকাভুক্ত মনোনীত প্রায় ৮৮ জন এজেন্টকে ১৯টি ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দিয়ে ব্যাপক জাল ভোট দেওয়া হয়েছে এবং নির্বাচনের দিন বিকেল ৩টায় বনানী বিদ্যানিকেতন ভোটকেন্দ্রে প্রার্থী হিসেবে ভোটগ্রহণ পরিদর্শনে গেলে সরকার দলীয় ক্যাডারেরা আমাকে মারধর করে। যা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ঘটনা, যা দেশ ও বিদেশের কোটি কোটি মানুষ ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার মাধ্যমে সরাসরি প্রত্যক্ষ করেছেন। ওই ঘটনার পর বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে আমার মনোনীত এজেন্টদের জোরপূর্বক বের করে ভোট গণনা করা হয়েছে, যা সম্পূর্ণ নির্বাচনবিধি পরিপন্থি। আমার ওপরে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হামলা, ব্যাপক জাল ভোট ও ভোট গণনার অনিয়ম নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। তাই আমি মনে করি এই নির্বাচন বিধিসম্মত হয়নি।

অতএব, এই প্রহসনের নির্বাচনকে সম্পূর্ণরূপে বাতিল ঘোষণা করে পুনর্নির্বাচনের দাবি করছি। সেই সঙ্গে ফলাফল বাতিল করে আমার প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে নির্বাচনবিধি লঙ্ঘনের দায়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।

About

Popular Links