Saturday, June 15, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বন্যায় ব্যাপক ক্ষতির মুখে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্প

বন্যায় ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্প। অনেক স্থানে রেললাইন ভেঙে গেছে, কোথাও রেললাইনের পাথর সরে গেছে, সেতু ধসে গেছে

আপডেট : ১০ আগস্ট ২০২৩, ০৯:৫৬ এএম

টানা ভারি বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে পার্বত্য তিন জেলা বন্যার কবলে পড়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। বন্যা ও জলাবদ্ধতায় ক্ষতির মুখে পড়েছে উন্নয়ন প্রকল্পও। চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্পের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অনেক স্থানে রেললাইন ভেঙে গেছে, কোথাও রেললাইনের পাথর সরে গেছে, সেতু ধসে গেছে। তবে ক্ষতির পরিমাণ এখনো জানা যায়নি।

বৃহস্পতিবার (১০ আগস্ট) অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউন এক প্রতিবেদনে জানায়, টানা বর্ষণে নির্মাণাধীন এই রেলপথের পটিয়া শ্রীমাই খালের ওপরের সেতুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সেতুটির রেলিং ভেঙে নিচে পড়ে গেছে।

পটিয়া রেলওয়ে স্টেশনের ব্যবস্থাপক নিজাম উদ্দিন বলেন, “সেতুটি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিষয়টি কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। রেলওয়ের যান্ত্রিক বিভাগ এটির দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে।”

দোহাজারী-রামু-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্প পরিচালক মফিজুর রহমান বলেন, “টানা বর্ষণে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। এতে রেললাইনের ক্ষতি হয়েছে। তবে কী ধরনের ক্ষতি হয়েছে তা পানি কমার পর জানা যাবে।”

তিনি আরও বলেন, “ইতোমধ্যে দোহাজারি-কক্সবাজার রেললাইন ৯০ কিলোমিটার দৃশ্যমান। প্রকল্পের কাজ ৮৭% সম্পন্ন হয়েছে। আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে রেললাইনের কাজ সম্পন্ন করে ট্রেন চালানোর প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। গত কয়েক দিন বন্যার কারণে রেললাইনের কাজ করা যায়নি। পানি নেমে যাওয়ার পর যেসব স্থানে সমস্যা হয়েছে তা ঠিক করা হবে।”

১৮ হাজার ৩৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকা ব্যয়ে দোহাজারি-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ২০১১ সালের ৩ এপ্রিল দোহাজারী-রামু-কক্সবাজার ও রামু-ঘুমধুম পর্যন্ত মিটারগেজ রেলপথ নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্যে চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে রামু পর্যন্ত ৮৮ কিলোমিটার এবং রামু থেকে কক্সবাজার ১২ কিলোমিটার রেললাইন রয়েছে।

২০১৮ সালে ডুয়েল গেজ এবং সিঙ্গেল ট্র্যাক রেললাইন প্রকল্পের নির্মাণকাজ শুরু হয়। চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে কক্সবাজার রামু পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণে প্রথমে ব্যয় ধরা হয় এক হাজার ৮৫২ কোটি টাকা। ২০১৬ সালে প্রকল্প প্রস্তাব সংশোধন করে ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ১৮ হাজার ৩৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকা।

About

Popular Links