Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

এমটিএফই প্রতারণা: রাজশাহীতে গ্রেপ্তার ২

বৃহস্পতিবার দুপুরের পর তাদের আদালতে চালান দিয়ে রিমান্ড চাওয়া হয়

আপডেট : ২৪ আগস্ট ২০২৩, ০৫:৫০ পিএম

দুবাইভিত্তিক মেটাভার্স ফরেন এক্সচেঞ্জ (এমটিএফই) অ্যাপ ব্যবহার করে অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণার অভিযোগে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার।

বুধবার (২৩ আগস্ট) দিবাগত রাতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সদস্যরা তাদের গ্রেপ্তার করে।

বৃহস্পতিবার দুপুরের পর তাদের আদালতে চালান দিয়ে রিমান্ড চাওয়া হয়।

গ্রেপ্তার আসামিরা হলেন- নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার মহাদেবপুর গ্রামের বাসিন্দা লতিফুর বারী (৪২) ও রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার বিষহারা গ্রামের বাসিন্দা দিপেন্দ্রনাথ সাহা (৪৩)। এর মধ্যে দিপেন্দ্রনাথ মোহনপুর উপজেলার খালমগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক।

পুলিশ কমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, “এমটিএফই অ্যাপ ব্যবহার করে অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণার অভিযোগে গত ২৩ জুলাই আদালতে একটি মামলা হয়। আদালতের নির্দেশে ওই মামলাটি রাজপাড়া থানায় রেকর্ড করে তিনটি সংস্থা তদন্ত করছে। ওই মামলায় এখন পর্যন্ত দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার আসামিদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।”

তিনি বলেন, “আমরা এর সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। আশা করছি, খুব দ্রুত তাদের পেয়ে যাবো।”

পুলিশ কমিশনার বলেন, “এর আগে ‘আলটিমা উইলেট’ নামের আরেকটি অ্যাপ বন্ধ হয়ে যায়। সেখানেও অনেকে প্রতারণার শিকার হন। এ নিয়ে গত ২৬ জুন বোয়ালিয়া থানার একটি মামলা হয়। সে মামলায় ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।”

গত ১৬ আগস্ট বন্ধ হয়ে গেছে এমটিএফই নামের দুবাইভিত্তিক এই অনলাইন প্রতিষ্ঠান। এটি অনলাইনে এমএলএম ব্যবসা শুরু করেছিল। রাজশাহীসহ সারা দেশে এই প্রতিষ্ঠানের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর ও সিইও নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

এমটিএফই অ্যাপে বিনিয়োগ নিয়ে পত্র-পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হলে ২৩ জুলাই আইনজীবী জহুরুল ইসলাম রাজশাহীর সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলার আবেদন করেন। এতে এমটিএফই ছাড়াও আলটিমা উইলেট অ্যাপের মাধ্যমে প্রতারণার কথা উল্লেখ করা হয়। আদালতের বিচারক জিয়াউর রহমান আরজিটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করার জন্য নগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) তদন্তের নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে তিন সংস্থার তিন কর্মকর্তাকে যৌথভাবে এই মামলা তদন্তের নির্দেশ দেন। পরদিন মামলাটি থানায় রেকর্ড করা হয়।

রাজপাড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নূর ইসলাম, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) এসআই মোস্তাফিন ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) এসআই শিমুল যৌথভাবে মামলাটি তদন্ত করছেন।

About

Popular Links