Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ঢাকায় আসছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরে খাদ্য, জ্বালানি ও সার সরবরাহ নিয়ে আলোচনা হতে পারে

আপডেট : ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৯:৩৮ এএম

প্রথমবারের মতো ঢাকা আসছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। এটি হবে রাশিয়ার কোনো পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রথম বাংলাদেশ সফর।

দিল্লিতে জি-২০ সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আগে বৃহস্পতিবার (৭ সেপ্টেম্বর) সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য ঢাকা সফর করছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে ঢাকায় পা রাখবেন তিনি। সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ-রাশিয়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলন করবেন দুই মন্ত্রী।

শুক্রবার সকালে শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পরে রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘরে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন তিনি। শুক্রবার দুপুরে দিল্লির উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ার কথা রয়েছে তার।

এর আগে ঢাকায় ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চল নিয়ে গঠিত ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশনের (আইওআরএ) বৈঠকে ২০২২ সালের নভেম্বরের শেষ দিকে ঢাকায় আসার কথা ছিল রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর। কিন্তু শেষ মুহূর্তে তা বাতিল করে মস্কো।

ঢাকা-মস্কো বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের অগ্রাধিকার বিষয়গুলোসহ বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও রোহিঙ্গা ইস্যু থাকবে আলোচনার টেবিলে। পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরে খাদ্য, জ্বালানি ও সার সরবরাহ নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

অন্যদিকে রাশিয়ার গণমাধ্যমে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা জানিয়েছেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সফরকালে দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়নে আরও জোর দেওয়া হবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী বৈঠকে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হবে।

যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা জোটের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে রাশিয়া। একই সঙ্গে চীনের উত্থান এবং ওইদেশের সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্ক ভূরাজনীতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই সময়ে উদীয়মান বাংলাদেশের সঙ্গে কী ধরনের সম্পর্ক রাশিয়া আশা করে এবং এর বিপরীতে ঢাকার অবস্থানকে সংশ্লিষ্ট সবাই পর্যবেক্ষণ করছে। বিশেষজ্ঞদের মতে “নিরপেক্ষ” একটি অবস্থান বজায় রাখার প্রয়োজন আছে বাংলাদেশের।

এ বিষয়ে সাবেক পররাষ্ট্র সচিব ও দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চেয়ার মো. শহীদুল হক বলেন, “রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, জ্বালানি-খাদ্য-সার নিরাপত্তা, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে এ সফর গুরুত্বপূর্ণ।”

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্কের তিক্ততার বিষয়টি যেমন কোনো গোপন বিষয় নয়, তেমনি ঢাকা ও ওয়াশিংটনের মধ্যে অস্বস্তিকর সম্পর্কের বিষয়টিও সবার নজরে আছে জানিয়ে তিনি বলেন, “এ মুহূর্তে ভারসাম্যের ছদ্মবেশে বাংলাদেশকে আরও ঘনিষ্ঠভাবে হয়তো পাশে চাইতে পারে রাশিয়া। কূটনীতিতে সঠিক সময়ে পদক্ষেপ নেওয়ার আলাদা একটি গুরুত্ব রয়েছে। এ সময়ে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঢাকা সফর তাদের বিবেচনায় সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ।”

রাশিয়া বাংলাদেশে বছরে প্রায় ২০০ কোটি ডলার মূল্যের গম, সার, তুলা, ডাল ও ইলেকট্রিক্যাল কন্ট্রোল বোর্ডসহ বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে থাকে। বাংলাদেশ বছরে প্রায় ১৫০ কোটি ডলার মূল্যের তৈরি পোশাকসহ বিভিন্ন পণ্য বিক্রি করে দেশটিতে। রূপপুর পারমাণবিক কেন্দ্রের নির্মাণকাজও চলছে রাশিয়ার ঋণ ও প্রযুক্তিতে।

 

About

Popular Links