Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বৃষ্টির মধ্যেই তুরাগের জলে ভাসলেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁ

  • ফ্রেন্ডশিপ নির্মিত নৌকায় চড়েন ম্যাঁক্রো
  • এ সময় নৌকাবাইচ উপভোগ করেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁ

 

আপডেট : ১১ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৪:৩৭ পিএম

বৃষ্টির মধ্যেই ঢাকার তুরাগ নদে নৌকাভ্রমণ করলেন ঢাকায় সফররত ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। এ সময় নৌকাবাইচ উপভোগ করেন তিনি।

সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তুরাগ তীরে পৌঁছান তিনি। সেখানে বৃষ্টির মধ্যেই তুরাগ নদ ঘুরে দেখেন।

ঢাকায় ফ্রান্স দূতাবাস এবং সামাজিক সংস্থা ফ্রেন্ডশিপ যৌথভাবে আয়োজন করে এই পানশী নৌকাভ্রমণের আয়োজন করে। 

মিরপুর বড় বাজার ইকো পার্ক ঘাট থেকে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো এবং অন্যান্য সফর সঙ্গীকে নিয়ে তুরাগ নদীতে যাত্রা করে "ফ্লেচেডি'অর" নামের ফ্রেন্ডশিপ নির্মিত পানশী নৌকাটি। এরপর সাভারের কাউন্দিয়া ইউনিয়নের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া কর্ণাতলী নদীতে প্রবেশ করে পানশী নৌকাটি। সেখানে কিছু সময় কাটান তারা।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো ‘র সঙ্গে এ পানশী নৌকা ভ্রমনের অংশ নেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান সাবের হোসেন চৌধুরী, বাংলাদেশে নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত মেরি মাসদুপুই, ফ্রেন্ডশিপের প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী পরিচালক রুনা খান এবং দু’দেশের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা।

আয়োজকরা জানান, নদীকেন্দ্রিক বাংলাদেশের জীবন-জীবিকা এবং নদী তীরবর্তী গ্রামবাংলার ঐতিহ্য তুলে ধরতে ফ্রান্স প্রেসিডেন্টের সম্মানে এই নৌকাভ্রমণের আয়োজন করা হয়।

ফ্রেন্ডশিপের প্রতিষ্ঠাতা রুনা খান বলেন, “পানশী নৌকা ছিল উত্তরবঙ্গের নদী অববাহিকার মানুষের যাতায়তের প্রধান বাহন। বিশেষ করে জমি থেকে ধান কেটে এ নৌকায় বোঝাই করে নিয়ে যেত বাংলার কৃষকরা। এর পাশাপাশি অনেক মালামাল পরিবহনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতো পানশী নৌকা। এই ঐতিহ্য সংরক্ষণে ফ্রেন্ডশিপের পক্ষ থেকে ফ্লেচেডি'অর নামের পানশী নৌকাটি তৈরি করা হয়েছে।”

তিনি জানান, কোনো দেশের রাষ্ট্রপ্রধান প্রধান হিসেবে ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁই প্রথম ফ্রেন্ডশিপ নির্মিত ঐতিহ্যবাহী নৌকায় চড়েন। এর আগে ২০০২ সালে ফ্রেন্ডশিপের নৌকায় চড়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন।

এর আগে, সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন ম্যাক্রোঁ। তার আগে ধানমন্ডি-৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট। সেখানে পৌঁছালে তাকে স্বাগত জানান জাতির পিতার ছোট মেয়ে শেখ রেহানাসহ বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরের কর্মকর্তারা।

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানোর পর জাদুঘর পরিদর্শন করেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁ।

দুই দিনের সফরে বাংলাদেশে এসেছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। রবিবার সন্ধ্যায় দিল্লি থেকে ঢাকায় এসে পৌঁছান তিনি। বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে ম্যাক্রোঁকে লাল গালিচা সংবর্ধনা এবং গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

বিমানবন্দর থেকে এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৈশভোজে যোগ দিতে সরাসরি হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে যান। সেখান থেকে রবিবার রাতে সংগীতশিল্পী, গীতিকার ও বাদ্যযন্ত্রী রাহুল আনন্দের ধানমন্ডির বাসার যান ম্যাক্রোঁ।

ফরাসি প্রেসিডেন্টের সোমবার বিকেলে ঢাকা ত্যাগের কথা রয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বিমানবন্দরে তাকে বিদায় জানাবেন।

৩৩ বছর পর এটাই প্রথম কোনো ফরাসি প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফর। সর্বশেষ ১৯৯০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ফ্রান্সের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট মিত্রান্দের বাংলাদেশ সফরে এসেছিলেন।

বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি বিবেচনায় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফর অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। ম্যাক্রোঁর এই সফরের মাধ্যমে ঢাকা ও প্যারিসের মধ্যকার সম্পর্ক নতুন গতি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

 

About

Popular Links