Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘মধ্যম আয়ের ফাঁদে পড়লে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ সম্ভব নয়’

সালমান বলেন, টাকার অবমূল্যায়ন এবং জ্বালানি ও পণ্যের দাম বৃদ্ধি বিশ্বের অন্যান্য অর্থনীতির মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছে

আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৪:৪১ পিএম

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, “যদি আমরা মধ্যম আয়ের ফাঁদে পড়ে যাই, তবে আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত জাতি হওয়ার লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হবো না।”

মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

সালমান বলেন, “বাংলাদেশের এলডিসি স্ট্যাটাস থেকে উত্তীর্ণ হওয়ার পরে একটি বড় ঝুঁকি রয়েছে, যদি উত্তোরণের সঙ্গে এই চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করা না হয়। টাকার অবমূল্যায়ন এবং জ্বালানি ও পণ্যের দাম বৃদ্ধি বিশ্বের অন্যান্য অর্থনীতির মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছে।”

অভ্যন্তরীণ রাজস্ব সংগ্রহ, কর আদায় ব্যবস্থাকে ব্যাপক কর নেটসহ আধুনিকীকরণ এবং রপ্তানি বহুমুখীকরণের ওপর জোর দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা বলেন, “টেক্সটাইল খাতে বৈচিত্র্য আনার বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। বাংলাদেশকে আরও দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ করতে হবে এবং এখানে ব্যবসা সহজ করার ক্ষেত্রে আরও কিছু করার প্রচেষ্টা রয়েছে।”

রাষ্ট্রদূত হোয়াইটলি বলেছেন, প্রতিবেদনটিতে একটি খুব উল্লেখযোগ্য বিষয়ের উল্লেখ করা হয়েছে, যা অনেক দরকারী সুপারিশ করেছে।

অনুষ্ঠানে  “প্রোডাকশন ট্রান্সফর্মেশন পলিসি রিভিউ অব বাংলাদেশ: ইনভেস্টিং ইন দ্য ফিউচার অব আ ট্রেডিং ন্যাশন” শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। সেখানে বলা হয়, বাংলাদেশের নীতিগত পদ্ধতির আধুনিকীকরণ করা দরকার এবং এটি নীতি সংস্কারের জন্য পাঁচটি অগ্রাধিকার চিহ্নিত করেছে; উদ্ভাবনকে উৎসাহিত করা, উন্মুক্ততা পরিচালনা করা এবং আঞ্চলিক একীকরণ, প্রাতিষ্ঠানিক স্ট্রিমলাইনিং এবং লাল ফিতা কাটার আধুনিকীকরণ এবং নিয়ন্ত্রক কাঠামোর উন্নত করা।

প্রতিবেদনে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, বাংলাদেশের সফলতা অব্যাহত রাখতে মূল্য-নেতৃত্বাধীন প্রতিযোগিতামূলক মডেল থেকে একটি গুণমান এবং উদ্ভাবন মডেলে স্থানান্তর করা দরকার।

বাংলাদেশ ২০২৬ সালে এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে উত্তীর্ণ হবে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উচ্চ আয়ের দেশ হওয়ার পথে রয়েছে।

About

Popular Links