Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কক্সবাজারে পরিবহন ধর্মঘট, ভোগান্তিতে পর্যটকসহ সাধারণ মানুষ

৭ দফা দাবিতে ধর্মঘট চলছে

আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২৩, ০৩:১৬ পিএম

কক্সবাজারে পরিবহন ধর্মঘটের কবলে পড়েছেন সাধারণ মানুষ ও ভ্রমণে আসা পর্যটকরা। এতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের। বুধবার (১৮ অক্টোবর) সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ডাকা ধর্মঘটের কারণে এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

৭ দফা দাবিতে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার-টেকনাফ-বান্দরবান সড়ক ও পিএবি বাঁশখালীসহ চট্টগ্রাম দক্ষিণাঞ্চলের তিন জেলা ও উপজেলায় ধর্মঘট পালনের ডাক দেয় পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। হঠাৎ পরিবহন ধর্মঘটের কারণে কক্সবাজারে বেড়াতে আসা পর্যটক ও চট্টগ্রাম-ঢাকামুখী সাধারণ মানুষ দুর্ভোগে পড়ে। কক্সবাজার বাস টার্মিনালের বিভিন্ন বাস কাউন্টারে টিকেট না পেয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়েছে। 

কক্সবাজারে বেড়াতে আসা সিরাজগঞ্জের পর্যটক দম্পতি রায়হান উদ্দিন চৌধুরী ও বীথি চৌধুরী বলেন, “পরিবহন ধর্মঘটের কথা আমরা জানতাম না। আমরা সেন্টমার্টিন থেকে কক্সবাজার বাসটার্মিনালে এসে জানতে পারলাম আজ ধর্মঘট চলছে। ওদিকে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা যাওয়ার জন্য আমাদের ট্রেনের টিকেট করা আছে। আজ বিকেলের মধ্যে ফিরতে না পারলে টিকেট বাতিল হয়ে যাবে।”

ঢাকা মোহাম্মদপুর থেকে আসা শফিউল আজম বলেন, “দুইদিন হলো কক্সবাজারে বেড়াতে এসেছি বউ-বাচ্চা নিয়ে। আজ ঢাকা ফেরার কথা। কিন্তু, বাস নাই। ধর্মঘটের কারণে আটকে গেলাম। আমাদের কাছে থাকা বাজেটও শেষ। বাসের টিকেটের জন্য কাউন্টারে সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।”

উখিয়ার ইনানী বাইল্যাখালী এলাকার বাসিন্দা মৌলনা আবু সৈয়দ। মা’কে নিয়ে চিকিৎসার জন্য ঢাকা যেতে কাউন্টারে এসে জানতে পারেন পরিবহন ধর্মঘট চলছে। তিনি বলেন, “বাস না পাওয়ার কারণে চিকিৎসা নিয়ে শঙ্কায় পড়ে গেছি।”

কক্সবাজার আরকান সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের প্রচার সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “আমরা ৭ দফা দাবিতে চট্টগ্রাম, বান্দরবানের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত পরিবহন ধর্মঘট পালন করছি। আমরা আশা করছি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আমাদের দাবিগুলো মেনে নিবে। দাবি না মানলে সামনে আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।”

কক্সবাজার জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি শেফাতুল আলম বাবু বলেন, ‘“সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন ও সড়কের বিশৃঙ্খলাসহ বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে চট্টগ্রাম বিভাগের মালিক ও শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সঙ্গে আমরাও সকাল-সন্ধ্যা ধর্মঘট পালন করছি। এটি আমাদের পূর্বঘোষিত কর্মসূচি ছিল।”

কক্সবাজার কলাতলী মেরিন ড্রাইভ হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মৌখিম খান বলেন, “কক্সবাজার ভ্রমনে আসা পর্যটকরা রাতে আসা-যাওয়া করলেও বেশিরভাগ পর্যটক দিনে সড়কপথে আসা যাওয়া করে। কিছু পর্যটক আবার বিমানে করেও কক্সবাজার ভ্রমণ করে থাকেন। কিন্তু, আজ ধর্মঘটের কারণে ঢাকা থেকে দিলের বেলায় কোনো পর্যটক আসেনি এবং কক্সবাজার ছেড়ে যায়নি।”

About

Popular Links