Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

এক শিক্ষার্থীর ‘অসুস্থতায়’ আক্রান্ত আরও ৫৯

অসুস্থ হওয়া ৬০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৫৯ জনই ছাত্রী

আপডেট : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৭:৩৫ পিএম

চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলায় গণ-মনস্তাত্ত্বিক রোগে দু’টি স্কুলের ৬০ জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছে। মঙ্গলবার (৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে নন্দনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও নন্দনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। 

ক্লাস চলাকালীন সময়ে শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হয়ে পড়ার পর তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এখনও হাসপাতালে ভর্তি আছে ২৮ শিক্ষার্থী। অসুস্থ হওয়া ৬০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৫৯ জনই ছাত্রী।

স্থানীয়রা জানান, নন্দনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস চলাকালে পঞ্চম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী মাথা ঘুরে পড়ে যায়। তার এ অবস্থা দেখে ভয়ে অন্য শিক্ষার্থীরাও মাথা ঘুরে পড়ে যেতে শুরু করে। পরে এ স্কুলের ১৫ শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। 

এদিকে, এই গণ অসুস্থতার খবর পার্শ্ববর্তী হাই স্কুলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে সেখানেও একে একে মাথা ঘুরে পড়ে যায় বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। এ অবস্থা দেখে স্কুল ছুটি দিয়ে শিক্ষার্থীদের বাড়ি পাঠিয়ে দেন শিক্ষকরা। 

কিন্তু, বাড়িতে গিয়ে অভিভাবকদেরকে বিষয়টি জানানোর পরেও অজ্ঞান হয়েছে অনেক শিক্ষার্থী। নন্দনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪৫ জন শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। 

হাসপাতালে ভর্তি নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী তামান্না ঢাকা ট্রিবিউনকে জানায়, আসলে ওদের এমন অবস্থা দেখে আমিও ভয় পেয়ে ঘুরে পড়ে যাই। তারপর কি হয়েছে তা আর বলতে পারবো না।

প্রধান শিক্ষক হারাধন ভৌমিক ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, অনেক আগে আরেকটি স্কুলে এ ধরনের ঘটনা ঘটে। সে জন্য এ ধরনের বিষয় নিয়ে আমি আগে থেকেই জানতাম। তাই স্কুল ছুটি দিয়ে বাচ্চাদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেই। তাদের আতঙ্কিত না হওয়ার সবরকম প্রচেষ্টা চালাই।

হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স মাকসুদা বেগম জানান, শিক্ষার্থীরা আমাদের জানিয়েছে তারা কিছু এক গন্ধ পাওয়ার পরই মাথা ঘুরে পড়ে যায়। আমরা তাদের চিকিৎসা দিচ্ছি।

এ বিষয়ে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত আরএমও ডা. সোহেল রানা ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, এটাকে গণ হিস্টিরিয়া বলা হয়। ভয় থেকে এ সমস্যার তৈরি হয়েছে। এটি কোনও রোগ নয়। এ নিয়ে অভিভাবকদের আতঙ্কিত কিংবা উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।

তিনি বলেন, হাইস্কুলের ৪৫ শিক্ষার্থীসহ দু’টি স্কুলের মোট ৬০ জন শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিকের ১৫ জন এবং হাই স্কুলের ১৩ জন শিক্ষার্থী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

About

Popular Links