Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নিরাপদ-নির্বিঘ্ন যাতায়াতে মেট্রোরেলে নারীর জন্য সংরক্ষিত কোচ

২০১৮ সালে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক পরিচালিত গবেষণায় দেখো গেছে, গণপরিবহণ ব্যবহার করা ৯৪% নারী তাদের জীবনে কোনো না কোনো সময় যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২৩, ১০:৪৪ এএম

ঢাকায় গণপরিবহনে চলাচলে নারীরা খুব বেশি নিরাপদ বোধ করেন না। যৌন হেনস্থা থেকে শুরু করে নানা ধরনের দুর্ভোগ পোহাতে হয় তাদের। বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে মেট্রোরেলে নারীদের জন্য একটি কোচ সংরক্ষিত করেছে কর্তৃপক্ষ। নারীদের চলাচল নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এই উদ্যোগ সীমিত আকারে হলেও নারীদের স্বস্তির জায়গা তৈরি করবে।

সম্প্রতি মেট্রোরেলের উত্তরা উত্তর-আগারগাঁও রুটের বেশ কয়েকটি স্টেশন ঘুরে দেখা গেছে, স্টেশনে নারীদের মেট্রোরেলে ওঠানামার জন্য সংরক্ষিত গেট রয়েছে। এই গেটে ও প্ল্যাটফর্মের ওপরে নির্দেশিকা দেওয়া রয়েছে। নারী যাত্রীরা আগে থেকেই সংরক্ষিত অংশে মেট্রোরেলের জন্য অপেক্ষায় থাকেন। স্টেশনে মাইকে বারবার প্রচার করা হচ্ছে- সামনের কোচ নারীদের জন্য সংরক্ষিত।

সংরক্ষিত কোচ ব্যবস্থাকে স্বাগত জানাচ্ছেন নারী যাত্রীরা। কথা ইসলাম নামে এক নারী যাত্রী বলেন, “মেট্রোরেলে আলাদা কোচ নারীদের জন্য স্বস্তির ও নিরাপদের। ভিড় থাকলেও এক কোচে যখন সবাই নারী, তখন অস্বস্তি আর থাকে না।”

শায়লা আক্তার নামে চাকরিজীবী আরেক নারী যাত্রী বলেন, “ঢাকার গণপরিবহনে যাতায়াত করা নারীদের জন্য ভোগান্তির। বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। এমন বাস্তবতায় মেট্রোরেল সার্ভিসে নারীদের জন্য আলাদা কোচ- অভাবনীয় উদ্যোগ। এর ফলে কর্মক্ষেত্রে নারীদের উপস্থিতি আরও বাড়বে বলে মনে করি।”

নিয়মিত যাতায়াত করা শাম্মি আহমেদ নামে এক যাত্রী বলেন, “এখনো অনেক নারী যাত্রী আছেন, যারা সংরক্ষিত কোচ সম্পর্কে জানেন না। প্রায়ই কাউকে না কাউকে কৌতূহল নিয়ে জিজ্ঞাস করতে দেখেছি। আবার কিছু পুরুষ যাত্রী আছেন, ভিড়ের মধ্যে নারীদের কোচে উঠে পড়েন। প্রচারণা চালালে মেট্রোরেলে নারী যাত্রীরা আরও সুফল পাবেন।”

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক পরিচালিত গবেষণায় দেখো গেছে, গণপরিবহণ ব্যবহার করা ৯৪% নারী তাদের জীবনে কোনো না কোনো সময় যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন।

গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে চালানো এক জরিপে দেখা গেছে, বাস, লঞ্চ, ট্রেন, অন্যান্য যানবাহন ও টার্মিনালসহ গণপরিবহনে ৩৬% নারী নিয়মিত যৌন হয়রানির শিকার হন। ৫৭% নারী গণপরিবহণকে সবচেয়ে অনিরাপদ বলে মনে করেন। প্রকাশ্যে হয়রানির শিকার ৪৪% নারী কোনো সহযোগিতা পাননি।

সবদিক বিবেচনা করে “সেভ দা রোড” নামে একটি সংস্থা আন্তর্জাতিক নারী দিবসে নারীদের জন্য গণপরিবহনে ৩০% আসন সংরক্ষিত রাখার দাবি জানায়।

“সেভ দা রোড”র মহাসচিব শান্তা ফারজানা বলেন, “গণপরিবহনে নারী ধর্ষণের যতগুলো ঘটনা ঘটেছে, একটির বিচারও সুষ্ঠুভাবে শেষ হয়নি। ফলে নির্মম বাস্তবতার মুখোমুখি হচ্ছেন আমাদের মা-বোনেরা। নারীদের জন্য গণপরিবহনে সংরক্ষিত সিট রাখা যৌক্তিক। বর্তমানে বাংলাদেশের নারীশিক্ষা ও কর্মজীবীর হার যেভাবে বেড়েছে, তাতে নারীদের যথাযথ নিরাপত্তার বিষয়টি সবার আগে দেখা দরকার।”

About

Popular Links