Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

মূল সড়ক থেকে সরে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে গলিতে

কাকরাইল মোড় থেকে পল্টন, মালিবাগ ও রমনা পার্ক এলাকার মূল সড়কে হাজারো পুলিশ, র‌্যাব, ডিবি সদস্য অবস্থান করছেন। অন্যদিকে, বিভিন্ন এলাকার গলিতে হাজার হাজার বিএনপি নেতাকর্মী অবস্থান করছেন

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২৩, ০৪:৫০ পিএম

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংস হয়ে উঠছে দেশের রাজনীতি। শনিবার (২৮ অক্টোবর) ঢাকায় বিএনপি, আওয়ামী লীগ ও জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের সমাবেশকে ঘিরে দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় পর রাজনৈতিক সহিংসতা দেখলো ঢাকাবাসী।

শনিবারের এই রাজনৈতিক কর্মসূচিগুলো নিয়ে জনমনে সহিংসতার শঙ্কা ছিল। সেটিই সত্য হয়ে ওঠে। শনিবার রাজধানীর কাকরাইল ও  বিএনপি কার্যালয় নয়াপল্টনে পুলিশ-বিএনপি ও আওয়ামী লীগ ত্রিমুখী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সহিংসতার ঘটনায় মহাসমাবেশ স্থগিত করেছে বিএনপি। তারা আগামীকাল সারাদেশে হরতালের ডাক দিয়েছে।

মহাসড়ক থেকে বিএনপি নেতাকর্মীদের ধাওয়া দিয়ে সরিয়ে দিয়েছে পুলিশ। বিএনপি নেতাকর্মীরা ঢাকার বিভিন্ন অলিগলিতে অবস্থান নিয়েছে। ফলে সংঘর্ষ অলিগলিতে ছড়িয়ে পড়েছে। সেখান থেকেই পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলছে। সুযোগ পেলেই গলি থেকে বের হয়ে ঢিল ছুড়ছেন তারা। সঙ্গে সঙ্গেই পাল্টা ধাওয়া করছে পুলিশ। সরেজমিনে প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে অনলাইন সংবাদমাধ্যম ঢাকা পোস্ট।

পুলিশ বলছে, গলি থেকে বিএনপি কর্মীদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। যতক্ষণ পর্যন্ত পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে না আসবে, ততক্ষণ আমরা মূল সড়কে অবস্থান চালিয়ে যাব।

সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কাকরাইল মোড় থেকে পল্টন, মালিবাগ ও রমনা পার্ক এলাকার মূল সড়কে হাজারো পুলিশ, র‌্যাব, ডিবি সদস্য অবস্থান করছেন। অন্যদিকে, বিভিন্ন এলাকার গলিতে হাজার হাজার বিএনপি নেতাকর্মী অবস্থান করছেন।

এর আগে দুপুর আড়াইটার দিকে পুলিশি বাধার মুখে সরকার পতনের এক দফা দাবিতে শুরু হওয়া বিএনপির নয়াপল্টনের সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়। ধাওয়া খেয়ে নেতাকর্মীরা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। পরে নয়াপল্টন ও রাজধানীর অন্যান্য স্থানে বিএনপি-পুলিশ-আওয়ামী লীগ ত্রিমুখী সংঘর্ষ হয়। এসব ঘটনায় বিএনপির বহু নেতাকর্মীর পাশাপাশি পুলিশ ও সাংবাদিকরা আহত হয়েছেন। পুলিশ দাবি করেছে, তাদের ৪১ জন সদস্য আহত হয়েছেন।

মোড়ে মোড়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা, জটলা বাধতে দিচ্ছে না পুলিশ

শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অবস্থান নিয়েছেন। সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউনের প্রতিবেদন আবিদ হাসান জানান, বিভিন্ন দিক থেকে মিছিল নিয়ে শাহবাগ হয়ে আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ যাচ্ছেন নেতাকর্মীরা। তাদের সঙ্গে বাঁশ ও এসএস পাইপের সঙ্গে বাঁধা পতাকা রয়েছে। অপরদিকে মৎস ভবনের দিক থেকে বিচ্ছিন্নভাবে লোকজন সায়েন্স ল্যাবের দিকে যাচ্ছে। শাহবাগ মোড়ে পুলিশ বক্সের সামনে পুলিশ অবস্থান নিয়েছে।

মাতুয়াইল থেকে বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম জানান, মাতুয়াইল থেকে কাউকে জোটবদ্ধ হয়ে যেতে দিচ্ছে পুলিশ। পুরো এলাকায় পুলিশের গাড়ি টহল দিচ্ছে। পাড়া-মহল্লার ভেতরে বিএনপির নেতাকর্মীরা একজোট হওয়ার প্রাণপন চেষ্টা করছে। থমথমে পরিস্থিতিতে মূল সড়কে যানবাহন কম।

আওয়মী লীগের সমাবেশে নিজেদের মধ্যে মারামারি

এদিকে আওয়মী লীগের সমাবেশে নিজেদের মধ্যেও মারামারি ঘটনা ঘটেছে। শনিবার বেলা ২টার দিকে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউন জানায়, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বক্তব্য দেওয়ার সময় এ বিশৃঙ্খলা হয়। এ সময় হাতে থাকা স্ট্যাম্প এক গ্রুপ আরেক গ্রুপের দিকে ছুড়ে মারতে দেখা যায়।

সমাবেশস্থলে বিশৃঙ্খলা দেখা দিলে মঞ্চ থেকে শেখ ইনান সবাইকে শান্ত হওয়ার অনুরোধ জানান। তারপরও বিশৃঙ্খলা না থামলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমসহ কেন্দ্রীয় নেতারা সবাইকে শান্ত হওয়ার জন্য বললে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

About

Popular Links