Sunday, June 16, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক, যাত্রী কম

কমলাপুর রেল স্টেশন ব্যবস্থাপক বলেন, স্টেশনে যাত্রীর চাপ কিছুটা কম। মূলত যারা আগে থেকে যারা টিকেট কেটেছিলেন তারাই স্টেশনে এসেছেন। তাৎক্ষণিক টিকেট কাটা যাত্রীর সংখ্যা কম

আপডেট : ৩১ অক্টোবর ২০২৩, ০১:১৬ পিএম

আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ও  নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের এক দফা দাবিতে মঙ্গলবার (৩১ অক্টোবর) সকাল থেকে সারাদেশে শুরু হয়েছে বিএনপি-জামায়াত ও সমমনা বিরোধী দলগুলোর তিন দিনের সড়ক, রেল ও নৌপথ অবরোধ।

অবরোধের প্রথম দিনে সড়কে দূরপাল্লার কোনো বাস চলাচল করতে দেখা যায়নি। তবে স্বাভাবিক রয়েছে ট্রেন চলাচল। মঙ্গলবার কমলাপুর রেল স্টেশনে ৫৬ জোড়া ট্রেনের শিডিউল রয়েছে। এর মধ্যে দুপুর পর্যন্ত ২৬ জোড়া ট্রেন স্টেশন ছেড়ে গেছে, কোনো শিডিউল বিপর্যয় ঘটেনি। তবে স্টেশনে তুলনামূলক যাত্রীর চাপ কম।

কমলাপুর রেল স্টেশন ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ মাসুদ সারওয়ার ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “স্টেশনে যাত্রীর চাপ কিছুটা কম। মূলত যারা আগে থেকে যারা টিকেট কেটেছিলেন তারাই স্টেশনে এসেছেন। তাৎক্ষণিক টিকেট কাটা যাত্রীর সংখ্যা কম। ট্রেনের শিডিউল নিয়মিত রয়েছে। বিপর্যয় হওয়ার সম্ভাবনা নেই।”

ইশ্বরদীগামী ট্রেন ধরতে কমলাপুরে এসেছেন মোহাম্মদ সোহাগ নামে এক যাত্রী। তিনি বলেন, “গতকাল ঢাকায় এসেছিলাম স্ত্রীর ডাক্তার দেখাতে। আগেই টিকেট কাটা ছিল, আজ ফিরে যাচ্ছি। অবরোধের কারণে আগেই স্টেশনে এসেছি। সিএনজি নিয়ে কমলাপুরে এসেছি।”

গত ২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশে বিএনপি-আওয়ামী লীগ ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষের পর হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বিএনপি।

অবরোধের প্রথম দিন সকালে দেশের কোথাও তেমনভাবে সক্রিয় দেখা যায়নি বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীদের। সকালে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে দুটি বাস ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। অবরোধ আতঙ্কে রাজধানী থেকে দূরপাল্লার কোনো গণপরিবহন ছেড়ে যায়নি। মানুষের চলাচল ও ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যাও কম দেখা গেছে।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কিছু সহিংসতার খবর পাওয়া যাচ্ছে। চট্টগ্রামে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেওয়া হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ২৩ জন আহত হয়েছেন। এছাড়া কুমিল্লায় সহিংসতার ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। রাজধানীর মাতুয়াইলে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। কিশোরগঞ্জে পুলিশের গুলিতে দুইজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

এছাড়া অবরোধ শুরুর আগের রাতে চট্টগ্রাম ও গাজীপুরে তিনটি বাসে আগুন দেওয়া হয়েছে। এসব ঘটনায় কেউ কেউ হতাহত হয়নি।

 

About

Popular Links