Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বৃষ্টিকে সঙ্গী করে নামবে শীত

নিম্নচাপের কারণে সারাদেশে হওয়া বৃষ্টি শীত নামিয়ে আনতে কিছুটা সহায়ক ভূমিকা রাখবে

আপডেট : ১৬ নভেম্বর ২০২৩, ০৪:৩৫ পিএম

বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস। এছাড়াও চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) সকালে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার পূর্বাভাসে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে আবহাওয়াবিদ কাজী জেবুন্নেসা বলেন, “ঘূর্ণিঝড় হোক বা না হোক, নিম্নচাপের কারণে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হবে। যেমন, আরিচায় সকাল থেকে এ পর্যন্ত ৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে এবং কক্সবাজারে ৫ মিলিমিটার। দুপুরের রিপোর্টে আরও জানতে পারব।”

এই নিম্নচাপের কারণে সারাদেশে হওয়া বৃষ্টি শীত নামিয়ে আনতে কিছুটা সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন এই আবহাওয়াবিদ। তিনি বলেন, “ভৌগোলিক কারণে আমাদের দেশে শীত আসার আগে এরকম দুই একটা নিম্নচাপ হয়।”

তিনি বলেন, “বৃষ্টির পর মেঘ কেটে যায়, আকাশ পরিষ্কার হয়ে যায়। আর শীতের পূর্বশর্তই হল আকাশ পরিষ্কার থাকতে হবে। তাই, বৃষ্টির পর হালকা শীত শীত অনুভূতি হতে পারে। অবশ্য দিনাজপুর, রংপুর, পঞ্চগড়সহ প্রান্তিক পর্যায়ে ইতোমধ্যে শীত নামতে শুরু করেছে।”

এদিকে আবহাওয়ার বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গভীর নিম্নচাপটি বেলা ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৭২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৫৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হওয়ার পথে আরও ঘনীভূত হতে পারে। তখন গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছিল।

বুলেটিনে আরও বলা হয়েছে, নিম্নচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্রবন্দরগুলোর উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। সে কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। সেইসঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থাকতে বলা হয়েছে। যাতে অতি স্বল্প সময়ের নির্দেশে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে পারে। সেইসঙ্গে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতেও বলা হয়েছে।

About

Popular Links