Sunday, June 16, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সারাদেশে ১৬২ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন, র‍্যাবের ৪৩৫ টহল দল

বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর ডাকা ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ চলছে

আপডেট : ০৭ মার্চ ২০২৪, ০৩:২৮ পিএম

সরকারের পদত্যাগ এবং নির্দলীয় সরকারের অধীন নির্বাচনের দাবিতে বিএনপিসহ বিরোধী বিভিন্ন দল ও জোটের ডাকা নবম দফা অবরোধ কর্মসূচি শুরু হয়েছে।

রবিবার (৩ ডিসেম্বর) ভোর ৬টা থেকে শুরু হওয়া এই অবরোধ চলবে মঙ্গলবার ভোর ৬টা পর্যন্ত।

এদিকে‌ অবরোধের প্রথম দিন সকাল থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে গণপরিবহন প্রায় চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সড়কে মানুষের উপস্থিতিও বাড়ছে।

অন্যদিকে, নাশকতা ঠেকাতে জনবহুল ও গুরুত্বপূর্ণ সড়কের মোড়ে সতর্ক অবস্থায় রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে রাজধানীতে ১৪১টিসহ সারা দেশে র‍্যাবের ৪৩৫টি টহল দল মাঠে নেমেছে।

বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ঢাকা ও এর আশপাশের জেলায় ২৩ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েনসহ সারা দেশে ১৬২ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানিয়েছেন, রাজনৈতিক এই কর্মসূচি চলাকালে যেকোনো ধরনের নাশকতা ও সহিংসতা প্রতিরোধে বাসস্ট্যান্ড, রেলস্টেশনসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে গোয়েন্দারা ছদ্মবেশে নজরদারি বাড়িয়েছে র‍্যাব। 


তিনি জানান, যাত্রী ও পণ্য পরিবহনে নিরাপত্তা প্রদানে দেশের বিভিন্ন স্থানে দূরপাল্লার গণপরিবহন ও পণ্যবাহী পরিবহনকে টহলের মাধ্যমে এ “স্কর্ট সার্ভিস” দিয়ে নিরাপদে গন্তব্যস্থলে পৌঁছে দিচ্ছে র‍্যাব। পাশাপাশি যেকোনো ধরনের নাশকতা ও সহিংসতা প্রতিরোধে বাসস্ট্যান্ড, রেলস্টেশনসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে গোয়েন্দারা ছদ্মবেশে নজরদারি অব্যাহত রেখেছে।

অবরোধ কর্মসূচি শুরুর আগে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ফার্মগেট মোড়ে একটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে অবরোধ কর্মসূচির সমর্থনে গতকাল সন্ধ্যায় ঢাকার আগারগাঁও থেকে শেওড়াপাড়া সড়কে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে একটি মশালমিছিল হয়। রাত ১১টার দিকে গাবতলী বাস টার্মিনাল এবং আগারগাঁও বেতার ভবনের সামনে দুটি বাসে অগ্নিসংযোগ করা হয়।

এর আগে, বৃহস্পতিবার বিকেলে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ অবরোধের ঘোষণা দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর।

এদিকে অবরোধকে কেন্দ্র করে রবিবার রাতে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থানে যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এর আগে সরকারের পদত্যাগ, দলীয় নেতাকর্মীদের মুক্তি ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীন নির্বাচনের দাবিতে গত ২৯ অক্টোবর থেকে হরতাল-অবরোধ পালন করে আসছে বিএনপিসহ সমমনা বিরোধী দলগুলো।

২৮ অক্টোবর মহাসমাবেশ করতে না পারার প্রতিবাদে ২৯ অক্টোবর সকাল-সন্ধ্যা হরতাল, ৩১ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত অবরোধ, তৃতীয় দফায় ৮ ও ৯ নভেম্বর, চতুর্থ দফায় ১২ ও ১৩ নভেম্বর এবং পঞ্চম দফায় ১৫ ও ১৬ নভেম্বর অবরোধ ঘোষণা করা হয়। এরপর ফের ১৯ ও ২০ নভেম্বর এবং ২২ ও ২৩ নভেম্বর ৪৮ ঘণ্টার হরতালের ডাক দেয় বিএনপি ও সমমনা দলগুলো। এরপর ২৬ নভেম্বর অবরোধ এবং ২৭ নভেম্বর হরতাল কর্মসূচি দেওয়া হয়।

About

Popular Links