Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নির্বাচনের মাঠে থাকবে সেনাবাহিনী

ইসি আলমগীর বলেন, নির্বাচনে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে থাকবে সেনাবাহিনীও

আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩, ০২:১৮ পিএম

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে মাঠে সেনাবাহিনী নামানোর কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেছেন, “নির্বাচনকে প্রতিহত করতে বিচ্ছিন্ন কিছু সহিংস ঘটনা ঘটলেও তা ভোটের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নষ্ট করতে পারবে না। ভোটারদের ভালো উপস্থিতি থাকবে। নির্বাচনে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে থাকবে সেনাবাহিনীও।”

মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে ময়মনসিংহে বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসনের নির্বাচন কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

ইসি আলমগীর বলেন, “আমাদের ওপর বিদেশি কোনো চাপ নেই। নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে আমরা কী কী ব্যবস্থা নিয়েছি সে বিষয়ে জানতে চেয়েছে তারা।”

বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ বিষয়ে তিনি বলেন, “সংলাপের জন্য বারবার তাদের আহ্বান করা হয়েছে কিন্তু তারা কখনো সাড়া দেয়নি। নির্বাচনে অংশ নেওয়া রাজনৈতিক দলগুলোর প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে প্রশাসনে বদল করা হচ্ছে, এটা নতুন কিছু নয়।”

অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করার জন্য রাজনৈতিক দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ভূমিকা রাখতে হবে এবং ভোটারদের কেন্দ্রে আনার ব্যবস্থা তাদেরকেই করতে হবে বলেন এই নির্বাচন কমিশনার।

আগামী ৭ জানুয়ারি ভোটের দিন রেখে গত ১৫ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা করে ইসি। ইতোমধ্যে নির্বাচনের অনেক কাজ গুছিয়ে নিয়েছে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর বর্জনের ভোটে এবার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে ২৯টি রাজনৈতিক দল। ছোট দলগুলোর ভোটের মাঠের সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও আওয়ামী লীগের “স্বতন্ত্র” প্রার্থীরা বইয়ে দিচ্ছেন নির্বাচনী হাওয়া।

এবার ইসিতে নির্বাচনের মাঠে সরব থাকতে ২,৭১২টি মনোনয়নপত্র জমা পড়ে। গত ১ ডিসেম্বর থেকে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত এসব মনোনয়ন যাচাই করে ইসি। এতে ১,৯৮৫টি মনোনয়ন বৈধ ও ৭৩১ জনের মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করা হয়। বৈধতা হারানো মনোনয়নপ্রত্যাশীরা মঙ্গলবার থেকে আপিল করতে পারবেন। ১৭ ডিসেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন আর ১৮ ডিসেম্বর দেওয়া হবে নির্বাচনী প্রতীক।

নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩৯টি দল অংশ নিয়েছিল; ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর হওয়া এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৪৮.০৪% ভোট পেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করে। এই নির্বাচনে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি ভোট পায় ৩২.৫০% আর জাতীয় পার্টি পায় ৭.০৪% ভোট।

দশম সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয় ১২টি দল। বিএনপি ও সমমনাদের বর্জনের মধ্যে এই নির্বাচনে ৭২.১৪% ভোট পেয়ে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। আর সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির পক্ষে ৭% ভোটার রায় দেন।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয় ৩৯টি দল। এই নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট পড়ে ৭৬.৮০%, ধানের শীষে ১৩.৫১% আর লাঙ্গলে ৫.৩৭% ভোট পড়ে। পরে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ তুলে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে বিএনপিসহ বেশ কয়েকটি দল। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। আর সংসদে প্রধান বিরোধী দল হয় জাতীয় পার্টি।

About

Popular Links