Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

টিআইবি: দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের ১৮ প্রার্থীর সম্পদ ১০০ কোটি টাকার বেশি

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের প্রার্থীদের মধ্যে ১৬৪ জনের বার্ষিক আয় এক কোটি টাকার বেশি

আপডেট : ২৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ১২:৫৯ পিএম

দ্বাদশ নির্বাচনে‌ ১,৮৯৬ জন‌‌ প্রার্থী নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন। এদের মধ্যে ১৬৪ জন প্রার্থীর বার্ষিক আয় কোটি টাকার বেশি। আর ১০০ কোটির বেশি সম্পদ রয়েছে ১৮ জনের।

মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) রাজধানীর ধানমন্ডিতে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এসব তথ্য জানায়।

নবম, দশম, একাদশ ও‌ দ্বাদশ‌ নিবাচনে নির্বাচন কমিশনে দেওয়া প্রার্থীদের হলফনামা বিশ্লেষণ করে এ‌সব তথ্য ‍তুলে ধরা হয়েছে। তথ্যচিত্র তুলে ধরেন টিআইবির তিন‌ সদস্যের গবেষণা দলের প্রধান তৌহিদুল ইসলাম। অন্য দুই সদস্য ছিলেন রিফাত রহমান ও রফিকুল ইসলাম।

তৌহিদুল ইসলাম বলেন, “দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে চূড়ান্ত প্রার্থীর সংখ্যা ১,৮৯৬ জন। যার মধ্যে ১৮% স্বতন্ত্র আর ৮২% প্রার্থী দলীয় টিকেটে। ৯৪.৯% প্রার্থী পুরুষ আর নারী প্রার্থী ৫.২৪%। ৫৭% প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক ও স্নাতকোত্তর। ৫৭% প্রার্থীর মূল পেশা ব্যবসা। আর আইন ও ব্যবসায়কে পেশা হিসেবে দেখিয়েছেন আইন ও কৃষিকাজ হিসেবে দেখিয়েছেন ৭.৮১%। আর রাজনীতিকে পেশা দেখিয়েছেন ২.৮৬%।”

“স্বতন্ত্র ও দলীয় প্রার্থীদের মধ্যে কোটিপতি প্রার্থীর সংখ্যা ৪৮০ জন। কোটিপতি প্রার্থীর মধ্যে ২৩৫ জন আওয়ামী লীগের, ১৬৩ জন স্বতন্ত্র, ৪৭ জন জাপার, ১৭ জন জেপির, ৭ জন জাসদের, ৬ জন তৃণমূল বিএনপির, ৫ জন বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির।”

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবির) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন টিআইবির চেয়ারপার্সন সুলতানা কামাল।

ভোটের আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হয়েছে ১৫ নভেম্বরের পর। ওইদিন দ্বাদশ সংসদের তফসিল ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে নির্বাচনি প্রচারণা চালাচ্ছেন প্রার্থীরা। আগামী ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত প্রচারণা চালাতে পারবেন তারা। আর সংসদে যাওয়ার ভাগ্য নির্ধারণ হবে ৭ জানুয়ারি। ওইদিন হবে জাতীয় সংসদের ভোট।

বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর বর্জনের ভোটে মাঠে রয়েছে ২৭টি দল। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীরাই নির্বাচনি হাওয়া বইয়ে দিচ্ছেন। ভোটকেন্দ্রে ভোটার টানতে ক্ষমতাসীন দল নিজ দলের নেতাদের “স্বতন্ত্র” হওয়ার অবাধ স্বাধীনতা দিয়েছে। ফলে অনেক স্থানে নৌকার সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে এই স্বতন্ত্রদের।

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের পর এখন পর্যন্ত ২৭টি দলের ১৫১৩ জন ও স্বতন্ত্র ৩৮২ জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রয়েছেন। আদালতের আদেশে আরও কিছু প্রার্থী যুক্ত হতে পারেন।

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ২৬৩ জন; এর বাইরে আওয়ামী লীগের প্রতীক ব্যবহার করছেন শরিক দলের ৬ প্রার্থী। আর মহাজোট ছেড়ে “আসন সমঝোতা” করে এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেওয়া জাতীয় পার্টির প্রার্থী রয়েছে ২৬৫ জন।

About

Popular Links