Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বগুড়ায় সাংবাদিকদের ওপর ‍হামলার আসামি রিমান্ডে

দুই সংবাদকর্মীকে  মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ক্যামেরা থেকে বেশ কিছু ফুটেজ মুছে ফেলতে বাধ্য করে আসামিরা

আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৫:১৩ পিএম

বগুড়ায় একটি বেসরকারি টেলিভিশনের অনুসন্ধানী দলের দুই সাংবাদিকের ওপর হামলা এবং আটকে রেখে মারধরের মামলার অন্যতম আসামি বেলাল হোসেন মুন্নার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তা বুধবার ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করলে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ শাহরিয়ার তারিক দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, বেসরকারি টেলিভিশনটি একটি অনুসন্ধানমূলক প্রতিবেদনের জন্য দেশের বিভিন্ন স্থানে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে অনিয়মের তথ্য সংগ্রহ করছিল। এর ধারাবাহিকতায় টিমের সদস্যরা ১৭ জানুয়ারি বেলা ১২টার দিকে বগুড়া শহরের কলোনি এলাকায় রিয়াল লাইফ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে যান। ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা পরিচয় পেয়ে তাদের ভেতরে ঢুকতে দেন। কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে নিরাময় কেন্দ্রের অনিয়মের ছবি ভিডিও করার সময় হঠাৎ তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। 

এরপর প্রতিষ্ঠানের মালিক নূর মোহাম্মদ নূরার নেতৃত্বে ১০/১২ জন দুর্বৃত্ত সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালায়। তারা স্টাফ রিপোর্টার এসএম জিয়া ও ক্যামেরাপারসন তানভীর মিজানকে দেড় ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতন এবং মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ক্যামেরা থেকে বেশ কিছু ফুটেজ মুছে ফেলতে বাধ্য করে। খবর পেয়ে পুলিশ সাংবাদিকদের উদ্ধার করে হামলাকারীদের গ্রেফতার করে। এ ব্যাপারে হামলার শিকার সাংবাদিক এসএম জিয়া সদর থানায় তিন জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। 

অভিযোগ পেয়ে পুলিশ এজাহারভুক্ত আসামি বগুড়া শহরে দক্ষিণ ঠনঠনিয়ার মৃত বদিউজ্জামানের ছেলে রিয়াল লাইফ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালক নূর মোহাম্মদ নূরা, প্রতিষ্ঠানের কর্মচারি শহরে নাটাইপাড়ার মৃত রামচন্দ্র দাসের ছেলে পলাশ কুমার দাস ও অপর কর্মচারি শহরে লতিফপুর কলোনির আশরাফ আলীর ছেলে আরকুকে গ্রেফতার করে। ২৯ জানুয়ারি আসামি পল্লব ও ৭ ফেব্রুয়ারি প্রধান আসামি নূরার সহযোগী মুন্নাকে গ্রেফতার করে। 

উল্লেখ্য, মুন্না ২০১৫ সালে শহরের কলোনি এলাকায় একটি হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বগুড়া সদর থানার এসআই রহিম উদ্দিন জানান, এজাহারভুক্ত তিন জনসহ মোট ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাদির দেওয়া তথ্য অনুসারে অস্ত্রের সন্ধান, ঘটনার রহস্য উদঘাটনে আসামি মুন্নাকে বুধবার অতিরিক্ত সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছিল। শুনানি শেষে আদালত ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পুলিশ কর্মকর্তা জানান, বৃহস্পতিবার মুন্নাকে হাজত থেকে রিমান্ডে নেয়া হবে। এছাড়া অপর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

About

Popular Links