Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ভোট কারচুপির আশঙ্কায় মৌলভীবাজারে জাতীয় পার্টির প্রার্থীর সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা

ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু না হওয়ার আশঙ্কার কথা জানিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন মৌলভীবাজার-১ আসনের জাতীয় পার্টির প্রার্থী রিয়াজ উদ্দিন

আপডেট : ০৬ জানুয়ারি ২০২৪, ০৯:০৩ পিএম

ভোটগ্রহণের এক দিন আগে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা ও জুড়ী) আসনের জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আহমেদ রিয়াজ উদ্দিন।

শনিবার (৬ জানুয়ারি) বিকেলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু না হওয়ার আশঙ্কার কথা জানিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন তিনি।

জানতে চাইলে আহমেদ রিয়াজ উদ্দিন বলেন, “ভোটের পরিবেশ এতদিন ভালো ছিল। এখন সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো সুযোগও নেই।”

তিনি বলেন, “গতরাতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী (মো. শাহাব উদ্দিন) প্রত্যেক ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদককে ডেকে বলেছেন যার যার কেন্দ্রে পাশ করিয়ে দিতে হবে। এই তথ্যও আমার কাছে আছে। হঠাৎ করে তারা পরিকল্পনা বদলেছে। তাহলে আমি কেন বদলাবো না? ভোটের দিন দুপুরে কান্নার চেয়ে আগের দিন সরে যাওয়া ভালো।”

কোনো ধরনের চাপ আছে কি না- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের চাপ দেওয়া হয়নি। মন্ত্রী (আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. শাহাব উদ্দিন) ও তার পরিবারের অনেক সমালোচনা করলেও বিন্দু পরিমাণ আমাকে কাউন্টার দেওয়া হয়নি। এমনকি প্রশাসনের ওপর আমার কোনো ধরনের অভিযোগ নেই।”

তিনি বলেন, “বড়লেখা-জুড়ী উপজেলার পুলিশ-প্রশাসনের কর্মকর্তারা সবসময় আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন, সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছেন।”

এ বিষয়ে মৌলভীবাজার জেলা রির্টানিং কর্মকর্তা ড. উর্মি বিনতে সালাম বলেন, “নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর বিষয়টি প্রার্থী আমাকে জানাননি এবং কী কারণে সরে গেলেন সে ব্যাপারেও তিনি লিখিত কোনো অভিযোগ করেননি। 

বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলা নিয়ে গঠিত মৌলভীবাজার-১ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আসনটির বর্তমান সংসদ সদস্য এবং সরকারের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। এ আসনের অপর প্রার্থীরা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ময়নুল ইসলাম (ট্রাক) এবং তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী আনোয়ার হোসেন (সোনালী আঁশ)।

আসনটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ১৫ হাজার ৬৩৯ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৬০ হাজার ১৬১ জন, নারী ভোটার ১ লাখ ৫৫ হাজার ৪৭৭ জন ও ট্রান্সজেন্ডার ভোটার ১ জন।

About

Popular Links