Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সমঝোতা হয়েছে, কোনো সমস্যা নেই’

বিবাদমান দুই পক্ষের সঙ্গে দায়িত্ব পালন নিয়ে কথা হয়েছে এবং কিছু অমীমাংসিত বিষয় মীমাংসা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জিএমপি কমিশনার

আপডেট : ২৮ জানুয়ারি ২০২৪, ০৩:৫০ পিএম

বিশ্ব ইজতেমার দুই পক্ষের মাঝে সমঝোতা হয়েছে। এখন কোনো সমস্যা নেই বলে জানিয়েছেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কমিশনার মাহবুব আলম। তিনি বলেছেন, “বিবাদমান দুই পক্ষের সঙ্গে দায়িত্ব পালন নিয়ে কথা হয়েছে এবং কিছু অমীমাংসিত বিষয় মীমাংসা হয়েছে। দুই পক্ষই একমত হয়েছেন।”

রবিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা মাঠের পুলিশ কন্ট্রোল রুমের সামনে দুই পক্ষের মাঝে সমঝোতা সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

মাহবুব আলম বলেন, “বিশ্ব ইজতেমার প্রস্তুতি প্রায় শেষ। কোনো ক্রমেই হকার বসতে দেওয়া হবে না। এবারও দুই পর্বের ইজতেমায় ছয় হাজার পুলিশ দায়িত্ব পালন করবেন। পুলিশ ছাড়াও আনসার-র‍্যাবসহ অন্যান্য বাহিনী প্রতি বছরের মত নিয়োজিত থাকবেন।”

সভা শেষে জুবায়ের পন্থীদের প্রতিনিধি প্রকৌশলী মেজবাহ উদ্দিন গণমাধ্যমকে বলেন, “আমরা দুই পক্ষই আলোচনায় বসেছিলাম। সব বিষয়ে ফয়সালা হয়েছে। এখন আর কোনো ঝামেলা নেই।”

একই গ্রুপের সূরা সদস্য আহাম্মদ আলী বলেন, “বিশ্ব ইজতেমার ৮০% কাজ শেষ হয়েছে। ফাঁকা জায়গায় সামিয়ানা বিভিন্ন জেলা থেকে আসবে।” সামিয়ানার সংকট আছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, “কোনো সংকট নেই। ইজতেমার জায়গা বেড়েছে তাই চাহিদাও বেড়েছে।”

সাদ গ্রুপের প্রতিনিধি দলের প্রধান রেজাউল করিম বলেন, “সমঝোতা হয়েছে। দেখা যাক কি হয়।” একই গ্রুপের সূরা সদস্য মাওলানা মিজানুর রহমান বলেন, “কিছু দামী জিনিসপত্র ওরা নিয়ে গিয়েছিল গত বছর। সেগুলোর বিষয়ে কথা হয়েছে।”

এদিকে, বিশ্ব ইজতেমার মূল ময়দানের অনেক অংশ এখনো ফাঁকা। শেষ হয়নি মূল মঞ্চের কাজও। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, দিয়া বাড়িতে বন্ধ হয়ে যাওয়া বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় ময়দান প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা বন্ধ হওয়ার পর ওই মাঠ থেকে সামিয়ানাসহ অন্যান্য সরঞ্জাম এখনো টঙ্গী ময়দানে আসেনি। ফলে আয়োজনে সংকট চলছে।”

সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সাংসদ জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কমিশনার মাহবুব আলম, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম, জুবায়ের পন্থীদের প্রতিনিধি প্রকৌশল মেজবাহ উদ্দিন, সাদ পন্থীদের আমির রেজাউল করিম সাদ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ বিশ্ব ইজতেমা সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগের প্রতিনিধিগণ।

প্রসঙ্গত, টঙ্গীর তুরাগ তীরে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব সম্পন্ন হবে দুই থেকে চার ফেব্রুয়ারি। দ্বিতীয় পর্ব ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি। ২০১১ সাল থেকে দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা।

About

Popular Links