Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বগুড়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পাঁচজনের মৃত্যু

বগুড়ার কাহালু ও আদমদীঘি উপজেলায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে

আপডেট : ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৯:৩৬ এএম

বগুড়ার কাহালু ও আদমদীঘি উপজেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। কাহালু ও আদমদীঘি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শনিবার (৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় দুই উপজেলার পৃথক জায়গায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন তারা।

নিহতরা হলেন- কাহালু উপজেলার দোগাছির ছয়ঘড়িয়া গ্রামের তিন কাঠমিস্ত্রি তরিকুল ইসলাম (২২), রাকিব ইসলাম (১৭) ও সিজান আহমেদ (১৮), একই উপজেলার বোরাইল গ্রামের খলিল শেখ (৯০) এবং নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার ভুবন গ্রামের পবিত্র চন্দ্র (৫২)।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে কাহালু থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাসুদ করিম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “কাঠমিস্ত্রি তরিকুল, রাকিব ও সিজান শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে মোটরসাইকেলে কাহালুর বীরকেদার কাজিপাড়ার একটি হোটেলে খেতে যাচ্ছিলেন। বগুড়া-নওগাঁ সড়কের নারহট্ট ইউনিয়নের দরগাহ বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছালে পেছন থেকে একটি ট্রাক তাদের ধাক্কা দেয়। এতে মোটরসাইকেল থেকে ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলেই তরিকুল ও রাকিব মারা যান। সিজানকে গুরুতর অবস্থায় বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিতে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরও বলেন, “নিহত তিন মোটরসাইকেল আরোহীর মাথায় হেলমেট ছিল না। ট্রাকটি শনাক্ত করে চালককে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।”

এদিকে, বেলা ১১টার দিকে কাহালু উপজেলার বোরাইল গ্রামে স্কুলের সামনে দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন খলিল শেখ। এ সময় দ্রুতগতিতে আসা একটি মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। গুরুতর ‍আহত অবস্থায় খলিলকে শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

কাহালু থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাসুদ রানা বলেন, “খলিল শেখের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় পরিবার মামলা করলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

অপরদিকে, একই দিন বিকেলে মোটরসাইকেলে ধানের চারা নিয়ে বদলগাছী উপজেলার ভুবন গ্রাম থেকে আদমদীঘি উপজেলার ভালোহালী গ্রামে যাচ্ছিলেন পবিত্র চন্দ্র। সন্ধ্যায় আদমদীঘির ইন্দইল এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক তাকে চাপা দেয়। এতে গুরুতর আহত হন এবং মোটরসাইকেলে আগুন ধরে পুড়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে আদমদীঘি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

আদমদীঘি থানার ওসি রাজেশ কুমার চক্রবর্তী বলেন, “মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।”

About

Popular Links