Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

এসপি প্রলয়ের অপসারণ দাবি যশোরের জনপ্রতিনিধিদের  

অপসারণ করা না হলে হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছেন তারা

আপডেট : ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৩৫ পিএম

যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ার্দ্দার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হুসাইনের অপসারণের দাবিতে কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছেন একদল জনপ্রতিনিধি। আন্দোলনকারীদের মধ্যে পৌর প্যানেল মেয়র-কাউন্সিলরদের পাশাপাশি উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা রয়েছেন। 

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) যশোর পৌরসভা হলরুমে সংবাদ সম্মেলন করে এই ঘোষণা দেন তারা। সংবাদ সম্মেলন প্রেসক্লাব যশোরে হওয়ার কথা থাকলেও পুলিশি বাধার মুখে স্থান পরিবর্তন করতে হয়।

সংবাদ সম্মেলন থেকে একই দাবিতে ১৬ ফেব্রুয়ারি মানববন্ধন, ১৭ ফেব্রুয়ারি বিক্ষোভ মিছিল, ১৮ ফেব্রুয়ারি দড়াটানায় বিক্ষোভ সমাবেশ করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এরপরেও দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে অপসারণ করা না হলে হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দিয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, যশোর পৌরসভা কাউন্সিলর শেখ জাহিদ হোসেন মিলন, রাজিবুল আলম, শাহেদ হোসেন নয়ন, সাহিদুর রহমান রিপনসহ বেশ কয়েকজন জনপ্রতিনিধির অফিস ভাঙচুর করেছে পুলিশ। আর বুধবার রাতে সুনির্দিষ্ট কোনো মামলা না থাকলেও কাউন্সিলর মিলনকে আটক করে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়েছে। কিছু ঘটলেই এসব জনপ্রিয় কাউন্সিলরদের অফিস ও বাসভবনে হামলা করে পুলিশ। তাদের এই অপতৎপরতার মাধ্যমে প্রকৃতপক্ষে যারা অপরাধী, সন্ত্রাসী তাদের আড়াল করা হচ্ছে।

লিখিত বক্তব্যে প্যানেল মেয়র শেখ মোকছিমুল বারী অপু বলেন, যশোরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি চরম অবনতি হয়েছে। চুরি, মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি বেড়েছে। খুনের মতো ঘটনা ঘটছে অহরহ। তবে এসপি প্রলয়ের নির্দেশে কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি। 

গত ৬ নভেম্বর পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ার্দ্দারের পদোন্নতি হলেও তিনি অন্যত্র যোগদান না করা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয় সংবাদ সম্মেলন থেকে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন যশোর সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল, হৈতবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সিদ্দিক, চুড়ামনকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন দফাদার, লেবুতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলীমুজ্জামান মিলন, উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসানুর রহমান লিটু, হৈবতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ সোহরাব হোসেন, রামনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান লাইফ, নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাজু আহমেদ, যশোর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাহিদুর রহমান রিপন, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাজিবুল আলম, ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাহেদ হোসেন নয়ন ও ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান বাবুল।

এছাড়া জনপ্রতিনিধিদের কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আফজাল হোসেন ও যশোর জেলা শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা পরিষদ সদস্য জবেদ আলীসহ আরও অনেকে। 

উল্লেখ্য, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত বছরের ২৮ নভেম্বর নির্বাচন কমিশনে পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ার্দ্দারকে বদলির আবেদন করেন জাতীয় পার্টির ছয়জন সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী। পরবর্তীতে অবশ্য সমঝোতার ভিত্তিতে প্রার্থীরা ওই আবেদন প্রত্যাহার করে নেন। আবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি প্রলয় কুমার জোয়ার্দ্দার নিয়মিত পদোন্নতি পেয়ে অতিরিক্ত ডিআইজি হয়েছেন। সাধারণত নিয়মিত পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তারা পূর্ব পদে কর্মরত থাকেন না।

About

Popular Links