Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রংপুর মটর মালিক নেতা নিপ্পনের গাড়িতে মুহুর্মুহু গুলি

  • শহরে বিরাজ করছে আতঙ্ক
  • এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ
আপডেট : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৪:৫২ পিএম

রংপুর জেলা মটর মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আফতাবুজ্জামান নিপ্পনকে বহন করা প্রাইভেট কার লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। তিনি অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছেন। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে গাড়িটি। 

রবিবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টার দিকে রংপুর নগরীর ব্যস্ততম এলাকা কামারপাড়া ঢাকা কোচস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে নগরীতে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে তিনজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (ক্রাইম) আবু মারুফ হোসেন।

হামলার শিকার আফতাবুজ্জামান নিপ্পন ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, রবিবার নগরীর গুপ্তপাড়া মহল্লায় মটর মালিক সমিতির অফিস থেকে ব্যক্তিগত গাড়িতে বাসায় ফিরছিলেন। পথে রাত আনুমানিক ১০টা ৫ মিনিটের দিকে ঢাকা কোচস্ট্যান্ড পার হওয়ার পরপরই আকস্মিকভাবে তার গাড়িতে গুলি চালানো হয়। টানা কয়েকটি গুলি এসে গাড়ির সানের কাঁচ ও বিভিন্ন অংশে আঘাত করে।

তিনি বলেন, “গাড়ির গ্লাস লাগানো থাকায় আল্লাহর অশেষ করুণায় প্রাণে রক্ষা পেয়েছি। গুলির শব্দ পেয়ে আশেপাশের লোকজন আমাকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসে। খবর পেয়ে পুলিশও দ্রুত ঘটনাস্থলে আসে। কিন্তু গুলি চালিয়ে দুবৃর্ত্তরা দ্রুত ঘটনাস্থল ছেড়ে চলে যায়।”

গাড়ির ভেতরে থাকায় দুবৃর্ত্তদের কাউকেই তিনি চিনতে পারেননি বলে জানিয়েছেন পরিবহন মালিকদের এ নেতা।

রংপুর জেলা মটর মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে থাকা আফতাবুজ্জামান নিপ্পনের ধারণা, সম্প্রতি তিনি নগরী থেকে মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড উচ্ছেদসহ বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছেন। এসব কাজ কারো কারো অসন্তোষের কারণ হতে পারে।

“এছাড়া অন্য কোনো কারণে আমাকে গুলি করে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়েছিল কি-না, তা জানি না।”

এ ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে কথা বলতে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাইন বিল্লাহর মোবাইল নম্বরে একাধিকবার ফোন করা হয়। তবে তিনি সাড়া দেননি।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (ক্রাইম) আবু মারুফ হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “ঘটনার পরপরই আমিসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় তিনজনকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।”

দুপুর দেড়টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। তবে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে। 

ঘটনাস্থলসহ সংশ্লিষ্ট এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করেছে পুলিশ। 

ডিসি (ক্রাইম) আবু মারুফ বলেন, “বেশিরভাগ ক্যামেরায় ‘নাইট ভিশন’ সুবিধা না থাকায় দুবৃর্ত্তদের চিহ্নিত করতে সমস্যা হচ্ছে। তবুও দুবৃর্ত্তদের গ্রেপ্তার করতে আমাদের অভিযান চলছে। দ্রুত তাদের ধরে আইনের আওতায় আনা হবে।”

About

Popular Links