Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কোকা-কোলা বাংলাদেশকে কিনে নিল তুরস্কের কোম্পানি

১,৪৩০ কোটি টাকায় কোকা-কোলা বাংলাদেশ বেভারেজেস লিমিটেডকে অধিগ্রহণ করল তুরস্কের কোকা-কোলা আইসেক

আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৬:৩৫ পিএম

১৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে (১,৪৩০ কোটি টাকা) কোকা-কোলা বাংলাদেশ বেভারেজেস লিমিটেডকে (সিসিবিবি) অধিগ্রহণের চুক্তি সম্পন্ন করেছে তুরস্কের কোকা-কোলা আইসেক (সিসিআই)।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) এই চুক্তি চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে কোকা-কোলা আইসেক। অধিগ্রহণের জন্য শেয়ার ক্রয় চুক্তির ঘোষণা দেওয়ার পাঁচ দিন পর ইস্তাম্বুলভিত্তিক কোম্পানিটি অধিগ্রহণ সম্পন্ন করল।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে শেয়ার স্থানান্তর নিবন্ধনের পরে চুক্তিটি সম্পন্ন করা হয়। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে চুক্তি সম্পন্ন হওয়ার পর সিসিবিবির ১০০% শেয়ারের মালিক এখন সিসিআই।

সিসিআই তার সম্পূর্ণ মালিকানাধীন সাবসিডিয়ারি সিসিআইএইচবিভি ও কোকা-কোলা কোম্পানির একটি সাবসিডিয়ারির সঙ্গে এই চুক্তি করেছে। যার প্রধান শেয়ারহোল্ডার হবে সিসিআই ইন্টারন্যাশনাল হল্যান্ড বিভি (সিসিআইএইচবিভি)।

কোকা-কোলা কোম্পানির সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল বেভারেজেস প্রাইভেট লিমিটেড (আইবিপিএল) ২০১৭ সালে ৭৪ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগে ময়মনসিংহের ভালুকায় কারখানাটি স্থাপন ও অন্যান্য অবকাঠামো গড়ে তোলে। তার সাত বছর পর সিসিবিবি ইস্তাম্বুলভিত্তিক কোম্পানিতে রূপান্তরিত হলো।

কোকা-কোলা বাংলাদেশ বেভারেজেস লিমিটেড দেশে কোক ব্র্যান্ডের পানীয় উৎপাদন, বিক্রয় ও বিতরণ করে থাকে। রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও ঢাকা অঞ্চলের প্রায় ১০ কোটি গ্রাহককে সেবা দেয় প্রতিষ্ঠানটি। তাদের তিন শতাধিক কর্মচারী রয়েছে। এছাড়া একটি বোতলজাত প্ল্যান্ট, তিনটি গুদামসহ প্রায় তিন লাখ বিক্রয়কেন্দ্র রয়েছে সিসিবিবির। কোম্পানির ডিস্ট্রিবিউটরের সংখ্যা ৫০০।

বাংলাদেশের কোমল পানীয়ের বাজার ৪,০০০ কোটি থেকে ৬,০০০ কোটি টাকা। যুক্তরাষ্ট্রের দুই কোমল পানীয় প্রস্ততকারক প্রতিষ্ঠান কোকা-কোলা ও পেপসিকোর পাশাপাশি প্রাণ, আকিজ ও পারটেক্সের মতো বেশ কয়েকটি স্থানীয় প্রতিষ্ঠান এই চাহিদা পূরণ করে।

সিসিআইয়ের মতে, ২০৩২ সালের মধ্যে বাংলাদেশের নন-অ্যালকোহলিক কোমল পানীয়ের বাজার ১২% বার্ষিক গড় প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সিসিআই কোকা-কোলার ব্র্যান্ড উৎপাদন, বিতরণ ও বাজারজাত করে এবং ১১টি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে। এই দেশগুলো হলো- আজারবাইজান, ইরাক, জর্ডান, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, পাকিস্তান, সিরিয়া, তাজিকিস্তান, তুরস্ক, তুর্কমেনিস্তান ও উজবেকিস্তান।

সিসিআইয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা করিম ইয়াহি বলেছেন, “আমরা সিসিবিবি অধিগ্রহণের জন্য শেয়ার ক্রয় চুক্তি স্বাক্ষর করতে পেরে আনন্দিত। এই চুক্তিকে আমরা ভবিষ্যতের সম্ভাবনাসহ বাজারে প্রবেশের দারুণ সুযোগ হিসেবে দেখছি।”

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) পূর্বাভাসের বরাত দিয়ে সিসিআই বলেছে, “২০১২ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে বাংলাদেশের অর্থনীতি বার্ষিক গড়ে ৬.৫% হারে বেড়েছে এবং ২০২৩ থেকে ২০২৮ সালের মধ্যে বার্ষিক গড় প্রবৃদ্ধি ৬.৭% হারে বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।”

About

Popular Links